kalerkantho

শুক্রবার  । ১৮ অক্টোবর ২০১৯। ২ কাতির্ক ১৪২৬। ১৮ সফর ১৪৪১              

ত্রিদেশীয় মোটর র‌্যালি আজ যাচ্ছে আগরতলায়

কূটনৈতিক প্রতিবেদক   

১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ১৫:০৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ত্রিদেশীয় মোটর র‌্যালি আজ যাচ্ছে আগরতলায়

মহাত্না গান্ধীর অহিংসা ও শান্তির বাণী ছড়িয়ে ত্রিদেশীয় মোটর র‌্যালি আজ মঙ্গলবার আখাউড়া-আগরতলা সীমান্ত পাড়ি দিয়ে ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের রাজধানী আগরতলায় যাচ্ছে। গতকাল সোমবার ঢাকায় ভারতীয় হাইকমিশনে আনুষ্ঠানিকভাবে র‌্যালিকে বিদায় জানান সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। 

মহাত্না গান্ধীর সার্ধশততম (দেড়শ’তম) জন্মবার্ষিকী উদযাপন উপলে বছরব্যাপী কর্মসূচির অংশ হিসেবে গত ৪ ফেব্রুয়ারি দিল্লির রাজঘাট থেকে শুরু হওয়া র‌্যালিটি গত রবিবার পেট্রাপোল-বেনাপোল সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে ঢুকে। ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং সড়ক পরিবহণ ও রাজপথ মন্ত্রণালয়ের সহায়তায় কলিঙ্গ মোটর স্পোর্টস কাব (কেএমএসসি) আয়োজিত এই মোটর র‌্যালি ২২ দিনে তিন দেশে সাত হাজার ২৫০ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করবে। ১০টি গাড়িতে ৩৫ সদস্যের মোটর র‌্যালির নেতৃত্ব দিচ্ছেন ভারতের সড়ক পরিবহণ ও রাজপথ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব শম্ভু সিং। 

গতকাল ঢাকায় ভারতীয় হাইকমিশনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে ভারপ্রাপ্ত হাইকমিশনার ড. আদর্শ সোয়াইকা বলেন, বাংলাদেশের সঙ্গে গান্ধীজীর নিবিড় সম্পর্ক ছিল। ১৯৪৬ সালের নভেম্বর মাসে গান্ধীজী নোয়াখালী এসে শান্তি মিশন প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। 

গান্ধী গবেষক ও গান্ধীবাদী সৈয়দ আবুল মকসুদ বলেন, মহাত্না গান্ধী সর্বকালের শ্রেষ্ঠ মহাপুরুষদের অন্যতম। তিনি বিংশ শতাব্দীর সর্বশ্রেষ্ঠ মানবতাবাদী কর্মী। তিনি প্রায় প্রতিদিনই বাংলাদেশের মানুষের উচ্চারিত অন্যতম নাম। 
সৈয়দ আবুল মকসুদ শীগগীরই গান্ধীকে নিয়ে একটি বই প্রকাশ এবং আগামী তিন মাসের মধ্যে গান্ধীবিষয়ক আর্কাইভ নিয়ে একটি জাদুঘর প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দেন। 

ভারতের সড়ক পরিবহণ ও রাজপথ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব শম্ভু সিং বলেন, ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব থাকাকালে তাঁকে বছরে দু’বার বাংলাদেশে আসতে হতো। এবার মোটর র‌্যালির জন্য তাঁকে ইয়াঙ্গুন যেতে বলা হয়েছিল। কিন্তু তিনি ঢাকায় আসতে চাইলে তাঁর মন্ত্রী এর কারণ জানতে চান। জবাবে তিনি বলেন, তিনি ঢাকায় স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন। 

শম্ভু সিং বলেন, বিশ্বের কেউই গান্ধীর মতো নয়। গান্ধীর কারণেই শান্তিপূর্ণভাবে ব্রিটিশদের কাছ থেকে ভারতীয়দের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর শান্তিপূর্ণ হয়েছিল। নেহেরু বা জিন্নাহ-অন্য কারো কারণে এটি হয়নি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা