kalerkantho

সোমবার। ১৭ জুন ২০১৯। ৩ আষাঢ় ১৪২৬। ১৩ শাওয়াল ১৪৪০

স্ত্রীর পরকীয়ার কারণেই খুন হন সুমন সরদার

বসিলায় তুরাগপারে হাত-পা কাটা লাশ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২০ মে, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পরকীয়া প্রেমের জের ধরে রাজধানীর বসিলায় সুমন সরদারকে হত্যা করার কথা স্বীকার করেছেন সুমনের স্ত্রী মুক্তা ও বন্ধু বশির ভাণ্ডারি। পুলিশের কাছে দেওয়া ১৬১ ধারার জবানবন্দি এবং রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদে এ দাবি করেছেন তাঁরা। এ বিষয়ে তাঁরা আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিতে রাজি হয়েছেন বলে পুলিশ জানিয়েছে। এর আগে পুলিশের তদন্তেও মুক্তা ও বশির ভাণ্ডারির মধ্যে গড়ে ওঠা প্রেমের জের ধরে সুমন সরদারকে হত্যা করা হয় বলে জানা গিয়েছিল। সেই সূত্র ধরেই তাঁদের গ্রেপ্তার ও মামলার ক্লু উদ্ধার করতে সক্ষম হয় পুলিশ।

গত ৯ মে তুরাগ নদের তীরে হাত-পা কাটা অবস্থায় সুমন সরদার নামে এক যুবকের লাশ উদ্ধার করেছিল পুলিশ। এ ঘটনায় সুমনের স্ত্রী মুক্তা বেগম পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদের পর জেলহাজতে রয়েছেন। আর সুমনের বন্ধু বশির ভাণ্ডারিকে আদালতের নির্দেশে চার দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ। দুজনই পুলিশের কাছে জবানবন্দিতে জানিয়েছেন, এ হত্যাকাণ্ডে পাঁচজন জড়িত রয়েছে।

নিহত সুমন সরদার রাজধানীর ঢাকা উদ্যানের ৩ নম্বর রোডের শেষ মাথায় একটি বাসায় পরিবার নিয়ে থাকতেন। তাঁর গ্রামের বাড়ি বরিশালের গৌরনদী থানার দক্ষিণ নাথৈ গ্রামে।

সাভার মডেল থানার ওসি এ এফ এম সায়েদ বলেন, ‘স্ত্রী মুক্তার সঙ্গে সুমন সরদারের বন্ধু বশিরের পরকীয়া প্রেমের কারণেই সুমনকে হত্যা করা হয়েছে। এই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে এখন পর্যন্ত পাঁচজনের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেছে। গ্রেপ্তারকৃত মুক্তা ১৬১ ধারায় আর বশির ভাণ্ডারি রিমান্ডে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। দুজনের জবানবন্দির মিল রয়েছে। আগামীকাল (সোমবার) বশিরকে আদালতে হাজির করা হবে। সে সেখানে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেবে বলে আশা করছি।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা