kalerkantho

রবিবার। ১৬ জুন ২০১৯। ২ আষাঢ় ১৪২৬। ১২ শাওয়াল ১৪৪০

শুভ কাজে সবার পাশে

ক্যান্সারে আক্রান্ত জনির পাশে শুভসংঘ

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, গাজীপুর   

১৮ মে, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ক্যান্সারে আক্রান্ত জনির পাশে শুভসংঘ

গাজীপুরের শ্রীপুরে টেস্টিকুলার ক্যান্সারে আক্রান্ত মেধাবী ছাত্র আশিকুল ইসলাম জনির পাশে দাঁড়িয়েছে কালের কণ্ঠ’র পাঠক সংগঠন ‘শুভসংঘ’। গতকাল শুক্রবার সকালে শুভসংঘের সদস্যরা জনির বাড়িতে গিয়ে চিকিৎসার খোঁজখবর নেন। ওই সময় জনির বাবা আবদুস সামাদের হাতে নগদ ৭০ হাজার টাকা তুলে দেন তাঁরা। টাকা হাতে পেয়ে কান্নাজড়ানো কণ্ঠে জনির বাবা বলেন, ‘টাকার জন্য আমার ছেলের চিকিৎসা আর বন্ধ থাকবে না।’ এর আগে সেখানে এক আলোচনাসভায় শ্রীপুর থানার ওসি জাবেদুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা জনির পাশে রয়েছি। জনির সুস্থতা পর্যন্ত পাশে থাকব ইনশাআল্লাহ।’

শ্রীপুর মুক্তিযোদ্ধা রহমত আলী বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের স্নাতক প্রথম বর্ষের ছাত্র আশিকুল ইসলাম জনি (২২)। জনি উপজেলার বরমী ইউনিয়নের দুর্লভপুর বেপারীপাড়া গ্রামের দিনমজুর আবদুস সামাদের ছেলে। প্রায় ছয় মাস আগে তাঁর শরীরে টেস্টিকুলার ক্যান্সার ধরা পড়ে। এরপর তাঁকে মিরপুর ডেলটা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে ডা. কাজী মঞ্জুর কাদেরের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসা চলছে তাঁর।

প্রতিবেশী ও স্বজনদের সহযোগিতাসহ ধারদেনায় এত দিন চিকিৎসা চললেও টাকার অভাবে জনির চিকিৎসা বন্ধ হতে বসে। এ নিয়ে গতকাল কালের কণ্ঠ’র ১৩ পৃষ্ঠায় ‘অর্থের কাছে হার মানতে চান না মেধাবী ছাত্র জনি’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। প্রতিবেদনটি দেখে সাড়া দেন অনেকেই। আজ সকালে স্থানীয় রাজনীতিক, শিক্ষক ও সমাজসেবকসহ শুভসংঘের শ্রীপুর উপজেলা শাখার সদস্যরা জনির বাড়িতে যান। সেখানে তাঁর চিকিৎসার খোঁজ নেন তাঁরা। ওই সময় চিকিৎসার জন্য শুভসংঘের সদস্যদের সংগ্রহ করা ৭০ হাজার টাকা আনুষ্ঠানিকভাবে জনির বাবার হাতে তুলে দেন শ্রীপুর থানার ওসি জাবেদুল ইসলাম। এর মধ্যে ২০ হাজার টাকা দেন বাটারফ্লাই মার্কেটিং লিমিটেডের চেয়ারম্যান এম এ মান্নান। এর আগে এক আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। শুভসংঘের শ্রীপুর উপজেলা শাখার সভাপতি জ্যেষ্ঠ শিক্ষক বাবুর আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য দেন শ্রীপুর থানার ওসি জাবেদুল ইসলাম প্রমুখ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা