kalerkantho

রবিবার । ২৬ মে ২০১৯। ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ২০ রমজান ১৪৪০

চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণার অভিযোগে গ্রেপ্তার ১৬

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৭ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণার অভিযোগে গ্রেপ্তার ১৬

র‌্যাবের অভিযানে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা থেকে গ্রেপ্তার ভুয়া সরকারি চাকরিদাতা প্রতারকচক্রের সদস্যরা। ছবি : কালের কণ্ঠ

চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণার অভিযোগে সংঘবদ্ধ চক্রের ১৬ জনকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। তাদের কাছ থেকে বিভিন্ন সহকারী প্রতিষ্ঠানে যোগদানের ভুয়া নিয়োগপত্র, চাকরি প্রার্থীদের সিভি, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি, প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত বিভিন্ন ঊর্ধ্বতন সরকারি ও বেসরকারি কর্মকর্তার ব্যবহৃত ভুয়া সিলমোহর, সিল প্যাড, কম্পিউটারের সিপিইউ জব্দ করা হয়। গতকাল বুধবার সকালে র‌্যাবের কারওয়ান বাজার অফিসে এক ব্রিফিংয়ে এমন তথ্য জানান র‌্যাব-৪-এর পরিচালক (অতিরিক্ত ডিআইজি) চৌধুরী মঞ্জুরুল কবির। 

গ্রেপ্তার হওয়া চক্রের সদস্যরা হলো—লিংকন ওরফে মাসুদ ওরফে প্রশান্ত কুমার সাহা, হাসান জিয়া, শাকির আলী শাকিল, জান্নাতুল ফেরদাউস রাসেল, সেলিম সরদার, শেখ জাকির হোসেন, আব্দুল কাদের শরীফ, হুমায়ূন কবীর, খলিলুর রহমান, ইসমাইল হোসেন, রাকিবুল ইসলাম ওরফে সম্রাট, আবুল হোসেন ওরফে সাইমুন, কেরামত হোসেন, রুবেল বিশ্বাস, কামরুজ্জামান এবং সাইফুল ইসলাম।

ব্রিফিংয়ে সবুর আলী নামে এক ব্যক্তির উদাহরণ দিয়ে বলা হয়, তাঁর (সবুর) বাড়ি চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে। বিমানবন্দর এলাকায় বোনের বাসায় থাকতেন তিনি। ২০১৮ সালের ৮ নভেম্বর বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে সৈনিক পদে নিয়োগের চিঠি পেয়েছিলেন সবুর আলী। চাকরিতে যোগদানের তারিখ ছিল গত ১৬ ফেব্রুয়ারি। আর এই চাকরি পেতে তিনি ১১ লাখ টাকা দিয়েছেন নড়াইলের শেখ জাকির হোসেনকে। টাকা দিয়ে নিয়োগপত্র হাতে পেলেও চাকরিতে যোগদান করা হয়নি তাঁর। কারণ, তাঁর নামে ইস্যু করা নিয়োগপত্রটি ছিল ভুয়া। সবুর আলী নিজের এবং তাঁর পরিচিত আরো দুজনের চাকরি পেতে এই প্রতারকদের হাতে তুলে দিয়েছেন ২৫ লাখ টাকা। এসব টাকাও ফেরত পাননি তাঁরা। কারণ প্রতারকচক্র ঘন ঘন অফিস বদল করায় তাদের দেখা মিলত না।

র‌্যাবের তদন্তে আরো উঠে এসেছে যারা এদের কাছ থেকে টাকা নিয়েছে, তারা সংঘবদ্ধ প্রতারকচক্রের সদস্য। সরকারি চাকরি দেওয়ার নামে এভাবে চক্রের সদস্যরা দীর্ঘদিন ধরে প্রতারণা করে আসছে। এ চক্রের সদস্যরা শুধু সবুর আলী নয়, গত কয়েক বছরে আরো অন্তত ১৬০ জনের সঙ্গে একই ধরনের প্রতারণা করেছে। তাদের মধ্যে একেকজনের কাছ থেকে পাঁচ লাখ টাকা থেকে শুরু করে ১০-১২ লাখ টাকা পর্যন্ত হাতিয়ে নিয়েছে এ প্রতারকচক্রের সদস্যরা।

এভাবে প্রতারিত হয়ে বেশ কয়েকজন চাকরিপ্রত্যাশী বেকার যুবক র‌্যাব-৪-এ অভিযোগ করেন। সেই অভিযোগের অনুসন্ধান করতে গিয়ে গত দুই দিনের অভিযানে প্রতারকচক্রের ১৬ সদস্যকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব।

মন্তব্য