kalerkantho

রবিবার । ২৬ মে ২০১৯। ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ২০ রমজান ১৪৪০

আশুলিয়ায় বাসে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে ৮ ডাকাত আটক

এই ডাকাত দলের সদস্যরা যাত্রীবেশে কৌশলে দেশের বিভিন্ন জেলায় ডাকাতি করত

নিজস্ব প্রতিবেদক, সাভার (ঢাকা)   

১৬ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আশুলিয়ায় বাসে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে ৮ ডাকাত আটক

পুলিশের হাতে আটক ডাকাতদলের সদস্যরা। ছবি : কালের কণ্ঠ

ঢাকার অদূরে আশুলিয়ায় দূরপাল্লার একটি চলন্ত বাসে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে আন্তজেলা সংঘবদ্ধ ডাকাতদলের আট সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ। গতকাল সোমবার গভীর রাতে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের নয়ারহাট কোহিনূর গেট এলাকা থেকে তাঁদের আটক করা হয়। আটক ডাকাতদের ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে প্রেরণ করেছে পুলিশ।

আটক ডাকাতরা হলেন নারায়ণগঞ্জ জেলার ইমান আলীর ছেলে শাহিনুর রহমান (৪৫), রংপুর জেলার মৃত আব্দুল হামিদের ছেলে তাজুল ইসলাম (৪৭), নাটোর জেলার মৃত আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে এছার উদ্দিন, নড়াইল জেলার লিয়াকত মোল্লার ছেলে হাছানুর রহমান (৩৫), ফরিদপুর জেলার মৃত সোনা উল্লাহ শেখের ছেলে কামরুল হাসান (৩৫), গাইবান্ধা জেলার মো. খলিলের ছেলে শরিফুল ইসলাম (২৮), জামালপুর জেলার ফজলুল হকের ছেলে খোরশেদ আলম (৩৫) ও নারায়ণগঞ্জ জেলার নাছির উদ্দিনের ছেলে হুমায়ন (২৭)।

আশুলিয়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মনিরুজ্জামান মোল্লা ও বিলায়েত হোসেন জানান, গত ৩০ মার্চ আশুলিয়ায় এস আলম পরিবহনের একটি দূরপাল্লার যাত্রীবাহী বাসে ডাকাতির সূত্র ধরে পুলিশ এক ডাকাতকে আটক করে। পরে তাঁর দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে রবিবার গভীর রাতে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে আশুলিয়ার নয়ারহাট এলাকায় ঝিনাইদহগামী পূর্বাশা পরিবহনে ডাকাতির প্রস্তুতির গোপন সংবাদ পায় পুলিশ। এরপর পুলিশ অভিযান চালিয়ে পূর্বাশা পরিবহনে ডাকাতির প্রস্তুতির সময় আন্তজেলা ডাকাতদলের ওই আট সদস্যকে আটক করে। এ সময় তাঁদের কাছ থেকে বেশ কিছু দেশীয় অস্ত্র ও মাদক উদ্ধার করা হয়।

মনিরুজ্জামান মোল্লা ও বিলায়েত হোসেন আরো জানান, এই ডাকাত দলের সদস্যরা যাত্রীবেশে কৌশলে দেশের বিভিন্ন জেলায় ডাকাতি করে থাকেন। রবিবার রাতেও সিলেট থেকে ঝিনাইদহের উদ্দেশে ছেড়ে আসা পূর্বাশা পরিবহনে পূর্বে থেকেই টিকিট কেটে যাত্রীবেশী দুই ডাকাত বাসের ভেতরে ছিলেন। পরে নরসিংদী পৌঁছালে আরো দুই ডাকাত বাসে যাত্রীবেশে ওঠেন। এরপর সর্বশেষ সাভার থেকে তিন ডাকাত যাত্রীবেশে উঠে আশুলিয়ার নয়ারহাট এলাকায় ডাকাতির প্রস্তুতি নিতে থাকেন।

আশুলিয়া থানার ওসি রিজাউল হক জানান, আটক ডাকাতদের বিরুদ্ধে মামলার পর রিমান্ড চেয়ে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। তাঁদের বিরুদ্ধে দেশের বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা রয়েছে।

মন্তব্য