kalerkantho

মঙ্গলবার । ২১ মে ২০১৯। ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৫ রমজান ১৪৪০

ট্রাম্পের নতুন সিদ্ধান্ত

ইরানের তেল আমদানি করলেই নিষেধাজ্ঞা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৪ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ইরানের কাছ থেকে তেল কিনলে বন্ধু রাষ্ট্র ভারতকেও ছাড় দেবে না যুক্তরাষ্ট্র। তাদের বিরুদ্ধেও অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হবে। গত সোমবার ভারতসহ ইরান থেকে তেল কেনা দেশগুলোকে যুক্তরাষ্ট্র এভাবে সতর্ক করে দিয়েছে। ইরানের বিরুদ্ধে আরো কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপে ওয়াশিংটন এ পদক্ষেপ নিচ্ছে।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও জানিয়েছেন, ‘আগামী ২ মের পর যারা ইরানের তেল কিনবে তাদের শাস্তি দেওয়া হবে। আমরা পরিষ্কার করে জানিয়েছি, যারা এই নিষেধাজ্ঞা মানবে না তাদের বিরুদ্ধে অবরোধ আরোপ করা হবে।’

ইরান থেকে তেল আমদানি করা দেশগুলোর ওপর গত বছরের শেষ দিকে নিষেধাজ্ঞা আরোপের হুমকি দিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র। সে সময় ইরান থেকে তেল আমদানি করা আটটি দেশ ইতালি, ভারত, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, তুরস্ক, চীন, তাইওয়ান ও গ্রিসকে তেল আমদানির জন্য নতুন উৎস খুঁজে বের করতে ছয় মাসের সময় বেঁধে দেয় তারা। আগামী মাসের শুরুতে এই সময় শেষ হবে। ইতালি, তাইওয়ান ও গ্রিস এরই মধ্যে ইরান থেকে তেল কেনা বন্ধ করেছে। অন্য দেশগুলো ছাড়ের মেয়াদ আরো বাড়ানোর অনুরোধ জানিয়েছে।

ইরান থেকে যে আটটি দেশ সবচেয়ে বেশি তেল আমদানি করে তাদের মধ্যে চীন শীর্ষে। ভারত রয়েছে দ্বিতীয় স্থানে। যুক্তরাষ্ট্রের কঠোর পদক্ষেপে চীন ও ভারতের পাশাপাশি তুরস্ক বড় ধরনের সমস্যার মুখোমুখি হবে। যুক্তরাষ্ট্রের সিদ্ধান্তের সমালোচনা করে চীন বলেছে, এই নিষেধাজ্ঞা মধ্যপ্রাচ্যের পরিস্থিতি এবং আন্তর্জাতিক জ্বালানি বাজারকে অস্থিতিশীল করে তুলবে। ভারতের জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্র জানিয়েছে, এসব ক্ষেত্রে কোনো একটি দেশের নয়, ভারত শুধু জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞা মেনে চলতে বাধ্য থাকতে পারে। জাতিসংঘ এখনো নিষেধাজ্ঞা জারি করেনি। তুরস্ক এরই মধ্যে একপক্ষীয় নিষেধাজ্ঞা না মানার কথা জানিয়েছে। দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত কাভুসোগলু বলেন, ‘প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে আমরা কিভাবে সম্পর্ক স্থাপন করব এ বিষয়ে একপক্ষীয় নিষেধাজ্ঞা এবং অবরোধ আমরা মানব না।’ সূত্র : এএফপি।

 

মন্তব্য