kalerkantho

বুধবার । ২২ মে ২০১৯। ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৬ রমজান ১৪৪০

সুদানের রাজনৈতিক সংকট

বশির প্রশ্নে একাট্টা বিরোধী দলগুলো

বেসামরিক সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরে ১৫ দিন সময় দিল এইউ

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৭ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



প্রায় তিন দশকের বিভাজন ভুলে সম্প্রতি শক্ত একটি জোট গড়তে সক্ষম হয় সুদানের প্রধান তিনটি রাজনৈতিক দল। প্রেসিডেন্ট ওমর আল-বশিরকে ক্ষমতাচ্যুত করার মধ্য দিয়ে সেই জোট এরই মধ্যে সাফল্যও পেয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সুদানের বিরোধী দলগুলো নিয়ে এক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপি। সেখানে উঠে এসেছে দলগুলোর একাল-সেকালের নানা পরিস্থিতি—

এখন বিরোধী দল কারা

বশিরের তিন দশকের শাসনামলে সুদানে প্রায় ১০০টি রাজনৈতিক দলের উত্থান-পতন দেখা গেছে। তবে বশিরের প্রধান বিরোধী হিসেবে সম্প্রতি আবির্ভূত হয় তিনটি দলের সমন্বয়ে গঠিত রাজনৈতিক জোট—‘অ্যালায়েন্স ফর ফ্রিডম অ্যান্ড চেঞ্জ’। জোটের তিনটি দল হলো নিদ্দা সুদান, ন্যাশনাল কনসেনসাস ফোর্সেস এবং সুদানিস প্রফেশনাল অ্যাসোসিয়েশন। এসব দলের সঙ্গে আবার অনেক ছোট ছোট দলের পৃথক জোট রয়েছে। যেমন নিদ্দা সুদানের সঙ্গে উম্মা পার্টি, দ্য সুদানিস কংগ্রেস পার্টি এবং সশস্ত্র সংগঠন সুদান পিপলস লিবারেশন মুভমেন্টের জোট রয়েছে। উম্মা পার্টির প্রধান হলেন সাদিক আল-মাহদি, যিনি গত শতাব্দীর ৬০ ও ৮০-এর দশকে দুই দফা প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। ১৯৮৯ সালে বশিরের নেত্বত্বাধীন অভ্যুত্থানে ক্ষমতাচ্যুত হন তিনি। মিসরে স্বেচ্ছায় এক বছর নির্বাসিত থাকার পর গত ডিসেম্বরে দেশে ফেরেন তিনি। আর সুদানিস কমিউনিস্ট পার্টি কিংবা বাথ পার্টির মতো অনেক বামপন্থী দল আছে ন্যাশনাল কনসেনসাস ফোর্সেসের সঙ্গে। অন্যদিকে সম্প্রতি অনেক ছোট ছোট আঞ্চলিক দলকে নিজেদের সঙ্গে ভিড়িয়েছে সুদানিস প্রফেশনাল অ্যাসোসিয়েশন। গত ডিসেম্বরে বশিরের বিরুদ্ধে আন্দোলনের যে সূত্রপাত ঘটে, সেখানে সব দলেরই বিভিন্ন ভূমিকা ছিল।

বিরোধীরা কতটা শক্তিশালী

বশিরকে ক্ষমতাচ্যুত করতে গত ডিসেম্বর থেকে সুদানজুড়ে বিভিন্ন সরকারি ভবনের সামনে আন্দোলন-সংগ্রাম শুরু হয়ে। দেশটির প্রবীণ সাংবাদিক মাহজোব মোহামেদ সালেহ (৯১) বলছেন, ‘একটা রাজনৈতিক পরিবর্তনের জন্য রাজনৈতিক জোটকে অনেক সংগঠিত ও দৃঢ় মনে হয়েছে। গত চার মাসে কোনো রকমের ভয়-ভীতি তাদের দমিয়ে রাখতে পারেনি।’

সরকারের হিসাব অনুযায়ী, আন্দোলন-সংগ্রাম করতে গিয়ে গত চার মাসে অন্তত ৬৫ জনের মৃত্যু হয়েছে।

১৫ দিন সময় দিল এইউ

বেসামরিক সরকারের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে সুদানের অন্তর্বর্তীকালীন সামরিক পরিষদকে ১৫ দিনের সময়সীমা বেঁধে দিয়েছে আফ্রিকান ইউনিয়ন (এইউ)। নইলে এইউয়ের সদস্যপদ কেড়ে নেওয়ার হুমকিও দেওয়া হয়েছে। গত সোমবার ইউনিয়নের এক বিবৃতিতে বলা হয়, ‘সামরিক বাহিনী কর্তৃক ক্ষমতা দখলের বিষয়টি এইউ পুরোপুরি প্রত্যখ্যান করছে; সেই সঙ্গে নিন্দাও জানাচ্ছে। এ ছাড়া সামরিক বাহিনী আগামী দুই বছর ক্ষমতায় থাকার যে পরিকল্পনা করছে, এইউ সেটাও সমর্থন করে না।’

দারফুরে নিহত ১৪

সুদানের দারফুর অঞ্চলের একটি আশ্রয়কেন্দ্রে সংঘর্ষের ঘটনায় ১৪ নিহত হয়েছে। দেশটির রাষ্ট্রায়ত্ত সংবাদ সংস্থা এসইউএনএ গত সোমবার এক খবরে জানায়, গত শনিবার কালমা আশ্রয়কেন্দ্রে এ সংঘর্ষ হয়। সূত্র : এএফপি।

মন্তব্য