kalerkantho

রবিবার । ২৬ মে ২০১৯। ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ২০ রমজান ১৪৪০

জালিয়ানওয়ালাবাগে ব্রিটিশ হাইকমিশনার

‘ভারত-ব্রিটেনের ইতিহাসের লজ্জাজনক অধ্যায়’

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৪ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



‘ভারত-ব্রিটেনের ইতিহাসের লজ্জাজনক অধ্যায়’

জালিয়ানওয়ালাবাগে শহীদদের স্মৃতিসৌধে গতকাল ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান ভারতে নিযুক্ত ব্রিটিশ হাইকমিশনার স্যার ডমিনিক অ্যাসকুইথ। ছবি : এএফপি

ভারতের ইতিহাসের অন্যতম নৃশংস ঘটনা ‘জালিয়ানওয়ালাবাগ হত্যাকাণ্ডের’ ১০০ বছর পূর্ণ হয় গতকাল ১৩ এপ্রিল। ১৯১৯ সালের এই দিনে পাঞ্জাবের জালিয়ানওয়ালাবাগে নৃশংস হত্যালীলা চালিয়েছিল ইংরেজ অফিসার জেনারেল ডায়ার। তার নির্দেশে শত শত নিরপরাধ মানুষের দিকে গুলি ছুড়েছিল ইংরেজ পুলিশ। প্রাণ হারিয়েছিলেন কয়েক শত মানুষ। আর সেই জালিয়ানওয়ালাবাগের হত্যাকাণ্ডের শতবর্ষ পূর্তিতে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাল গোটা দেশ। টুইট করে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করলেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, কংগ্রেস দলের সভাপতি রাহুল গান্ধীসহ রাজনৈতিক নেতারা।

এ ছাড়া জালিয়ানওয়ালাবাগে শহীদদের স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান ভারতে নিযুক্ত ব্রিটিশ হাইকমিশনার স্যার ডমিনিক অ্যাসকুইথ। ভিজিটরস বুকে ডমিনিক লেখেন, ‘জালিয়ানওয়ালাবাগে ১০০ বছর আগে ঘটে যাওয়া ওই নৃশংস ঘটনা ভারত এবং ব্রিটেনের ইতিহাসে একটি লজ্জাজনক অধ্যায়। আমরা ওই ঘটনার জন্য খুবই দুঃখিত এবং মর্মাহত। তবে আমি খুশি ভারত-ইংল্যান্ড সম্পর্ক বর্তমানে অনেক মজবুত। একবিংশ শতাব্দীতে উন্নয়নের জন্য দুই দেশ একসঙ্গে কাজ করছে।’

এদিকে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করে রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ টুইটে লেখেন, ‘১০০ বছর আগে আজকের দিনে আমাদের প্রিয় স্বাধীনতা সংগ্রামীরা জালিয়ানওয়ালাবাগে শহীদ হয়েছিলেন। একটি সৃশংস হত্যালীলা, যা কি না মানব সমাজের ওপর একটি দাগ, গোটা ভারত স্বাধীনতা সংগ্রামীদের এই বলিদান কখনো ভুলবে না। ওই ঘটনায় শহীদ স্বাধীনতা সংগ্রামীদের উদ্দেশে আমাদের শ্রদ্ধাজ্ঞাপন।’

মোদি লেখেন, ‘আজ, জালিয়ানওয়ালাবাগের নৃশংস হত্যাকাণ্ডের ১০০ বছর পার হলো। গোটা দেশ শহীদদের শ্রদ্ধা জানাচ্ছে। এই ভয়ানক দিনটি কিংবা তাঁদের আত্মবলিদান আমরা কখনই ভুলব না। তাঁদের স্মৃতি আমাদের আরো শক্তিশালী ভারতবর্ষ তৈরিতে অনুপ্রেরণা জোগায়।’

মুখ্যমন্ত্রী মমতা টুইট করেন, “জালিয়ানওয়ালাবাগের নৃশংস হত্যাকাণ্ডের ১০০ বছরে শহীদদের প্রতি আমি শ্রদ্ধা জানাচ্ছি। পাশাপাশি এই হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘নাইটহুড’ উপাধি ত্যাগের সিদ্ধান্তকেও সম্মান জানাচ্ছি।” সূত্র : এনডিটিভি।

মন্তব্য