kalerkantho

রবিবার । ২৬ মে ২০১৯। ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ২০ রমজান ১৪৪০

সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল কয়েকটি তথ্যের যাচাই

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৩ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ভারতের চলমান লোকসভা নির্বাচনের নানামুখী তথ্য বাতাসে ভাসছে। প্রথাগত গণমাধ্যমে যেমন তথ্য ছড়াচ্ছে, তেমনি অনলাইনেও চর্চা-আলাপ কম নেই। বিশেষ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে যেসব তথ্য ও ছবি প্রচার পাচ্ছে তার বেশির ভাগেরই যথার্থতা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। এরই কয়েকটি যাচাই করে দেখেছে বার্তা সংস্থা এএফপি। নির্বাচনসংক্রান্ত কয়েকটি তথ্যে সত্যতা যাচাই নিয়েই এই প্রতিবেদন।

১. মোদি সুনামি : জনসমুদ্রের সামনে দাঁড়িয়ে আছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি—এমন একটি ছবি এ মাসে ফেসবুকের বেশ কয়েকটি অ্যাকাউন্ট থেকে শেয়ার করা হয়। মোদির সমর্থনে এই বিপুল সমাগমকে তুলনা করা হয় ‘সুনামির’ সঙ্গে। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে, এটি এখনকার ছবি নয়। এটি ২০১৭ সালে তোলা। হিমাচল প্রদেশে ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) প্রার্থী এক রাজনীতিকের শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানের ছবি এটি। ওই অনুষ্ঠানে অন্যদের সঙ্গে মোদিও যোগ দেন। ওই ছবি নিয়ে এডিটিং সফটওয়্যার ব্যবহার করে জনসমাগম আরো বাড়িয়ে তারপর প্রকাশ করা হয়।

২. পাকিস্তানের পতাকা : ভারতের প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেসের জনসভার একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। যেখানে দেখানো হচ্ছে, জনসভায় পাকিস্তানের পতাকা উড়ছে। বাস্তবতা হচ্ছে, ওই পতাকা ভারতেরই একটি দল ইন্ডিয়ান ইউনিয়ন মুসলিম লীগের (আইইউএমএল) পতাকা। তাদের দলীয় পতাকাও সাদা ও সবুজ। আরেকটি ছবিতে দেখা যায় একটি সবুজ ভবন। এর গায়ে সাদা চাঁদ-তারা আঁকা। দাবি করা হয়, কেরালার কংগ্রেস কার্যালয় এটি। কিন্তু ওই ভবনটিও আইইউএমএলের।

৩. সোনিয়ার পা ছুঁয়েছেন মোদি : এই ছবি নিয়ে ফেসবুক ও টুইটারে একাধিক ছবি রয়েছে। ছবিতে দেখা যায়, প্রধানমন্ত্রী মোদি সোনিয়া গান্ধীর পায়ে হাত দিয়েছেন। বাস্তবতা হচ্ছে, ছবিটি ২০১৩ সালের। প্রেস ট্রাস্ট অব ইন্ডিয়ার ছবি এটি। প্রকৃত ছবিতে বিজেপির এক জ্যেষ্ঠ নেতার পা ছুঁয়ে প্রণাম করেন মোদি।

৪. বিজেপি গাড়িবহর? : ফেসবুক, টুইটার ও হোয়াটসঅ্যাপে ভাইরাল হয়ে যাওয়া এই ভিডিওটি দেখা হয়েছে লাখ লাখ বার। এতে দেখা যায়, একটি অ্যাম্বুল্যান্স পুলিশ আটকে দিয়েছে। এতে দাবি করা হয়, বিজেপি নেতা মনোজ তেওয়ারির গাড়ির বহর পার করার জন্য পুলিশ জরুরি অ্যাম্বুল্যান্সও আটকে দেয়। বাস্তবতা হচ্ছে, এটি ২০১৭ সালের ছবি। মালয়েশিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাক ওই সময় দিল্লি সফর করছিলেন। তাঁর গাড়ির বহর পার করার জন্যই পুলিশ অ্যাম্বুল্যান্স আটকে দেয়। সূত্র : এএফপি।

মন্তব্য