kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২০ জুন ২০১৯। ৬ আষাঢ় ১৪২৬। ১৬ শাওয়াল ১৪৪০

শ্রীলঙ্কার রাজনীতিতে নয়া মোড়

সিরিসেনাকে ছেড়ে নতুন দলে রাজাপক্ষে

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১২ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সিরিসেনাকে ছেড়ে নতুন দলে রাজাপক্ষে

মাহিন্দা রাজাপক্ষে

শ্রীলঙ্কার চলমান রাজনৈতিক সংকটের মধ্যে নতুন করে রাজনৈতিক মেরুকরণ শুরু হয়েছে। গতকাল রবিবার প্রেসিডেন্ট মাইত্রিপালা সিরিসেনার নেতৃত্বাধীন ‘শ্রীলঙ্কা ফ্রিডম পার্টি’র (এসএলএফপি) সঙ্গে পাঁচ দশকের সম্পর্ক ছিন্ন করেছেন মাহিন্দা রাজাপক্ষে। যোগ দিয়েছেন নবগঠিত ‘শ্রীলঙ্কা পিপলস পার্টিতে’ (এসএলপিপি)।

এই সিরিসেনাই সপ্তাহ দুয়েক আগে রনিল বিক্রমাসিংহেকে বরখাস্ত করে রাজাপক্ষেকে প্রধানমন্ত্রীর আসনে বসিয়েছিলেন। বিশ্লেষকদের ধারণা, আগামী জানুয়ারির আগাম নির্বাচনে অংশ নিতেই রাজাপক্ষে এসএলএফপি ছেড়ে এসএলপিপিতে যোগ দিয়েছেন।

১৯৫১ সালে এসএলএফপি প্রতিষ্ঠা করেন রাজাপক্ষের বাবা আলউইন রাজাপক্ষে। আর এসএলপিপির যাত্রা গত বছর। রাজাপক্ষের সমর্থকরা এটি প্রতিষ্ঠা করেন। উদ্দেশ্য ছিল রাজাপক্ষেকে রাজনীতিতে পুনঃপ্রবেশের সুযোগ করে দেওয়া। গত ফেব্রুয়ারিতে দলটি স্থানীয় নির্বাচনে অংশ নিয়ে ৩৪০টির মধ্যে দুই-তৃতীয়াংশ আসনে জয়ী হয়।

৭২ বছর বয়সী রাজাপক্ষে ২০০৫ সাল থেকে এক দশক শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট ছিলেন। ২০১৫ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে তিনি অপ্রত্যাশিতভাবে সিরিসেনার কাছে হেরে যান। সিরিসেনার প্রেসিডেন্ট হওয়ার পেছনে অবশ্য রনিল বিক্রমাসিংহের নেতৃত্বাধীন ‘ইউনাইটেড ন্যাশনাল পার্টি’র (ইউএনপি) সমর্থন ছিল।

যদিও নীতিগত প্রশ্নে সিরিসেনা ও বিক্রমাসিংহের মধ্যে ক্রমাগত দূরত্ব তৈরি হতে থাকে। ওই দূরত্ব সামনে আসে গত ২৬ অক্টোবর। ওই বিক্রমাসিংহেকে প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে বরখাস্ত করেন সিরিসেনা। একই দিন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তিনি শপথ পড়ান রাজাপক্ষেকে। এ ছাড়া ১৬ নভেম্বর পর্যন্ত পার্লামেন্ট মুলতবি করেন তিনি। তবে বিক্রমাসিংহে রাজাপক্ষের বরখাস্ত অমান্য করে নিজেকে এখনো প্রধানমন্ত্রী দাবি করে আসছেন। আর এই হিসাবে শ্রীলঙ্কা এখন দুই প্রধানমন্ত্রীর দেশ।

ইউএনপিসহ বেশ কয়েকটি দেশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণে পার্লামেন্টের অধিবেশন ডাকতে সিরিসেনাকে আহ্বান জানিয়ে আসছিল। কিন্তু সিরিসেনা সেই আহ্বানে সাড়া না দিয়ে গত শনিবার হঠাৎ করেই পার্লামেন্ট বিলুপ্ত ঘোষণা করে আগাম নির্বাচনের ঘোষণা দেন। আগামী ৫ জানুয়ারি এ নির্বাচন হওয়ার কথা রয়েছে। বিশ্লেষকরা বলছেন, ওই নির্বাচনে প্রার্থী হতেই রাজাপক্ষে এসএলএফপি ছেড়ে এসএলপিপিতে যোগ দিলেন। অন্যদিকে বিক্রমাসিংহের দল সিরিসেনার আগাম নির্বাচনের সিদ্ধান্তকে অসাংবিধানিক দাবি করে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হওয়ার ঘোষণা দিয়েছে।

এদিকে পার্লামেন্ট বিলুপ্ত করার ঘোষণায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস। এ ছাড়া সাংবিধানিকভাবে সংকট নিরসনের জন্য বিবাদমান দলগুলোকে আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া।

মন্তব্য