kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০২২ । ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

ঋণের কিস্তির চাপ সহ্য করতে না পেরে গৃহবধূর আত্মহত্যা

জয়পুরহাট প্রতিনিধি   

২ অক্টোবর, ২০২২ ১৪:৫৮ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



ঋণের কিস্তির চাপ সহ্য করতে না পেরে গৃহবধূর আত্মহত্যা

বেসরকারি সংস্থা থেকে নেওয়া ঋণের কিস্তির চাপে এক গৃহবধূ আত্মহত্যা করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। শনিবার (১ নভেম্বর) বিকেলে জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলার আমানপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহতের নাম হীরামুনি (২৮)। তিনি ওই গ্রামের ভ্যানচালক মাসুদ রানার স্ত্রী।

বিজ্ঞাপন

 

পুলিশ গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য জয়পুরহাট জেলা আধুনিক হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। এ ঘটনায় আক্কেলপুর থানায় একটি অস্বাভাবিক মৃত্যু মামলা দায়ের হয়েছে।  

থানা, নিহতের পরিবার ও গ্রামবাসী জানায়, গৃহবধূ হীরামুনি এবং তার স্বামী মাসুদ রানা সাপ্তাহিক, মাসিক ও এককালীন কিস্তিতে পরিশোধের শর্তে ছয়টির বেশি স্থানীয় বেসরকারি সমিতি থেকে প্রায় এক বছর আগে তিন লক্ষাধিক টাকা ঋণ নেন। প্রথমে ঋণের কিস্তি নিয়মিত পরিশোধ করলেও তিন-চার মাস ধরে তা করতে পারেননি।  

স্থানীয়দের দাবি, মৌলিক উন্নয়ন সংস্থা থেকে তাদের ছয় মাস মেয়াদে নেওয়া ঋণের পরিমাণ ৩৫ হাজার টাকা। এক সপ্তাহ আগে সুদে-আসলে ৩৯ হাজার টাকা পরিশোধ করার কথা ছিল। কিন্তু অভাবের কারণে পারেননি। শনিবার ঋণের বকেয়া নিতে সংস্থাটির মাঠকর্মী জাকির হোসেন সকাল ১১টার দিকে ওই গ্রামের সমিতির দলপতি তোফাজ্জল হোসেনের বাড়িতে গিয়ে হীরামুনিকে ডেকে পাঠান। হীরামুনি সেখানে হাজির হয়ে ঋণ পরিশোধের জন্য কয়েক দিন সময়ের আবেদন করেন। এ সময় কথা কাটাকাটির পর টাকা আদায়ের জন্য বিকেলে সমিতির লোকজনসহ হীরামুনির বাড়িতে অবস্থান নেওয়ার হুমকি দিয়ে কড়া ভাষায় অপমান করেন মাঠকর্মী জাকির হোসেন। পরে হীরামুনি বাড়ি ফিরে গ্যাস বড়ি খেয়ে গোসলখানায় যান। মায়ের দেরি দেখে তার ষষ্ঠ শ্রেণি পড়ুয়া কন্যা রাণী মায়ের খোঁজে গিয়ে তাকে অসুস্থ অবস্থায় পায়। হীরামুনি তখন গ্যাস বড়ি খাওয়ার বিষয়টি মেয়েকে জানান। পরে প্রতিবেশীদের মাধ্যমে খবর পেয়ে তার স্বামী ভ্যানচালক মাসুদ রানা হীরামুনিকে নওগাঁ হাসপাতালে নেওয়ার পথে তিনি মারা যান। খবর পেয়ে পুলিশ তার মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।  

মাসুদ রানা বলেন, ‘স্ত্রীর নামে নেওয়া টাকা সুদাসলে এক সপ্তাহ আগে পরিশোধ করার কথা ছিল। কিন্তু টাকাটা জোগাড় হয়নি। এ জন্য আমার স্ত্রী সমিতির মাঠকর্মীর কাছে কয়েক দিন সময় চেয়েছিলেন। কিন্তু মাঠকর্মী জাকির হোসেন অপমান করে সমিতির লোকজন নিয়ে বাড়িতে গিয়ে যেকোনো মূল্যে টাকা আদায়ের হুমকি দেন। বিষয়টি মেনে নিতে না পেরে আমার স্ত্রী আত্মহত্যা করেছে। ’

স্থানীয় রায়কালী ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য দুলাল হোসেন বলেন, ‘ভ্যানচালক মাসুদ রানা ও তার স্ত্রী হীরামুনির নামে আট থেকে ১০টি বেসরকারি সংস্থায় তিন লক্ষাধিক টাকার ঋণ নেওয়া আছে। ’

মৌলিক উন্নয়ন সংস্থার নির্বাহী পরিচালক আশরাফুন নাহার বলেন, ‘শনিবার অফিস ছুটি থাকা অবস্থায় মাঠকর্মীর কিস্তি আদায় করার কথা নয়। তা ছাড়া কিস্তির জন্য কাউকে চাপ দেওয়াও হয় না। ’

আক্কেলপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু বক্কর সিদ্দিক বলেন, ‘গৃহবধূ হীরামুনির একাধিক বেসরকারি সংস্থা থেকে  ঋণ নেওয়া ছিল। এ জন্য তিনি মানসিক চাপে ছিলেন। সে কারণেই তিনি আত্মহত্যা করতে পারেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। তার স্বামী থানায় অস্বাভাবিক মৃত্যু মামলা দায়ের করেছেন। তার মরদেহ শনিবার রাত ১০টায় হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ’



সাতদিনের সেরা