kalerkantho

শনিবার । ২৬ নভেম্বর ২০২২ । ১১ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ ।  ১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

লক্ষ্মীপুরে যুবলীগ নেতা আলাউদ্দিন হত্যা, আসামি ২৯

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি    

২ অক্টোবর, ২০২২ ০৫:০২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



লক্ষ্মীপুরে যুবলীগ নেতা আলাউদ্দিন হত্যা, আসামি ২৯

মো. আলাউদ্দিন পাটওয়ারী

লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার বশিকপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সহ-সভাপতি মো. আলাউদ্দিন পাটওয়ারীকে (৪৫) গুলি করে হত্যার ঘটনায় মামলা হয়েছে। শনিবার (১ আক্টোবর) দিবাগত রাতে নিহতের ছেলে আকাশ বাদী হয়ে চন্দ্রগঞ্জ থানায় এ মামলা দায়ের করেন। এতে ১৪ জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত আরো ১৫ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়।  

চন্দ্রগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মোসলেহ উদ্দিন বলেন, এ ঘটনায় হত্যা মামলা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

তবে গ্রেপ্তারের স্বার্থে এখন আসামিদের নাম-পরিচয় প্রকাশ করা হচ্ছে না। পরে বিস্তারিত জানানো হবে।  

নিহতের পরিবার জানায়, শুক্রবার (৩০ সেপ্টেম্বর) রাতে সদর উপজেলার বশিকপুর ইউনিয়নের রশিদপুর গ্রামের পোদ্দার দিঘিরপাড়ে আলাউদ্দিনকে গুলি করে হত্যা করা হয়। ঘটনার সময় আলাউদ্দিন মোটরসাইকেলযোগে বাড়ির দিকে যাচ্ছিলেন। ঘটনাস্থলে পৌঁছলে ওঁৎ পেতে থাকা সন্ত্রাসীরা তাকে গুলি করে। শব্দ শুনে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে তাকে পাশের একটি পুকুর থেকে উদ্ধার করে। তারা আলাউদ্দিনকে পোদ্দার বাজারের একটি হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরে অবস্থা গুরুতর হওয়ায় জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে আসলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

স্থানীয় সূত্রের ভাষ্যমতে, আলাউদ্দিন বশিকপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও সন্ত্রাসী বাহিনী প্রধান আবুল কাশেম জেহাদীর চাচাতো ভাই। তিনি কাশেম জেহাদীর সহযোগী হিসেবে পরিচিত আলাউদ্দিনের বিরুদ্ধে দুইটি হত্যা মামলা রয়েছে বলে চন্দ্রগঞ্জ থানার ওসি মো. মোসলেহ উদ্দিন দাবি করেছেন।

হত্যার ঘটনার পর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম ফারুক পিংকু, সাধারণ সম্পাদক নুর উদ্দিন চৌধুরী নয়ন এমপি, জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) মো. মাহফুজ্জামান আশরাফসহ দলীয় সিনিয়র নেতারা হাসপাতালে দেখতে গিয়েছিলেন। হত্যার প্রতিবাদে শুক্রবার মধ্যরাত ও শনিবার দুপুরে লক্ষ্মীপুর শহরে বিক্ষোভ মিছিল করেছে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।  

এ প্রসঙ্গে লক্ষ্মীপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নুর উদ্দিন চৌধুরী নয়ন এমপি দাবি করেছেন, হত্যার সঙ্গে বিএনপির লোকজন জড়িত রয়েছে। দীর্ঘদিন থেকে বিএনপির সন্ত্রাসীরা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের হুমকি দিচ্ছে। তারা এটি ঘটিয়েছে। বিএনপির সন্ত্রাসীরা ফের তারা মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে জেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক হাসিবুর রহমান বলেন, আমরা খুনের রাজনীতি করি না। আধিপত্য বিস্তার নিয়ে হত্যার ঘটনাটি ঘটেছে। এখন হযরানি করার জন্য বিএনপির বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে।



সাতদিনের সেরা