kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০২২ । ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ৮ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

বেতাগীতে অর্থাভাবে ১৭১ বছরের পুরনো পূজা বন্ধ হচ্ছে

বেতাগী (বরগুনা) প্রতিনিধি   

২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ১১:১৯ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বেতাগীতে অর্থাভাবে ১৭১ বছরের পুরনো পূজা বন্ধ হচ্ছে

মণ্ডপে মণ্ডপে চলছে সাজসাজরব। আর মাত্র বাকি দুই দিন। চলছে ধোয়া-মোছার কাজ। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা আগামী ১ অক্টোবর ষষ্ঠী তিথিতে অধিবাসের মধ্য থেকে শুরু হতে যাচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

সকল পূজামণ্ডপে প্রতিমা তৈরির কাজ শেষ পর্যায়ে। প্রতিমা তৈরির শিল্পীরা রং তুলতে ব্যস্ত সময় পার করছেন। এদিকে, উপজেলার মোকামিয়া ইউনিয়নের ১৭১ বছরের পুরনো পূজা অর্থাভাবে বন্ধ হচ্ছে এ বছর।

সনাতনিদের (হিন্দু) শাস্ত্রমতে, ব্রহ্মার বর অনুযায়ী কোনো মহিষাসুরকে একমাত্র নারী শক্তির দ্বারা সম্ভব ছিল বধ করা। কোনো মানুষ বা দেবতা দ্বারা তাকে বধ করা সম্ভব ছিল না। তাই ব্রহ্মা, বিষ্ণু ও শিবশক্তি দ্বারা সৃষ্ট নারীশক্তি সিংহবাহিনী মা দুর্গা মহিষাসুরকে পরাজিত করে হত্যা করেন। মহালয়ার দিনে দেবী দুর্গা মহিষাসুর বধের দায়িত্ব পান। আর এভাবেই মহালয়ার দিনে দেবী দুর্গার আগমন ঘটে মর্ত্যলোকে। গত ২৫ অক্টোবর রবিবার মহালয়ার মধ্যে দিয়ে দুর্গাপূজার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়েছে।

বেতাগীর পূজামণ্ডপগুলোতে চলছে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজ। শেষ মুহূর্তে প্রতিমা তৈরির শিল্পীরা প্রতিমাগুলোর সৌন্দর্য বর্ধনের জন্য তৈরি করা হচ্ছে মাটির বাহারি নকশা। শেষ মুহূর্তের রং তুলি আঁচড় দিচ্ছেন প্রতিমাশিল্পীরা। এ পেশার শিল্পীরা তাদের মনের মাধুরী মিশিয়ে কাজ করছেন।  

উপজেলার বিবিচিনি ইউনিয়নের পুটিয়াখালী দক্ষিণ-পূর্বপাড়া সর্বজনীন দুর্গা মন্দিরের সভাপতি স্বপন কুমার সিকদার বলেন, এ পূজামণ্ডপে রং-তুলির কাজ বুধবার শেষ হয়েছে। এখন আমাদের কর্মীদের নিয়ে ধোয়া-মোছার কাজে ব্যস্ত সময় কাটাতে হচ্ছে।

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের পঞ্জিকামতে, আগামী ১ অক্টোবর থেকে ষষ্ঠীপূজার মাধ্যমে দুর্গাপূজার শুভারম্ভ হবে। যথাক্রমে ২ অক্টোবর মহাসপ্তমী, ৩ অক্টোবর মহাঅষ্টমী, ৪ অক্টোবর মহানবমী ও ৫ অক্টোবর দশমীর দিনে দেবী দুর্গার প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে এবারের শারদীয় উৎসব সম্পন্ন হবে।  

নবযুগ পঞ্জিকার বর্ণনানুযায়ী, এ বছর ২ অক্টোবর মহাসপ্তমীতে দেবী দুর্গা গজে মর্তে আগমন করবেন এবং ৫ অক্টোবর দশমী তিথি নৌকায় কৈলাসে গমন করবেন। সেই সাথে পৃথিবীতে শষ্য ও সমৃদ্ধিতে পরিপূর্ণতায় ভরে উঠবে।  

বেতাগী পৌর শহরের জেলাপাড়া সার্বজনীন দূর্গা মন্দিরে প্রতিমা তৈরি কাজ করতে আসা বিমল পাল জানান, মাত্র দু'-একদিনের মধ্যে রং-তুলির কাজ শেষ করতে হবে। এখন দিন-রাত সমান কাজ করতে হচ্ছে।

বেতাগী উপজেলার একটি পৌরসভাসহ ৭টি ইউনিয়নের ৩৭টি পূজামণ্ডপে এ বছর দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। গত বছরের তুলনায় ৪টি পূজামণ্ডপ বেড়েছে।  

তবে উপজেলার মোকামিয়া ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের  মন্ডল বাড়ির দূর্গা পূজা এ বছর প্রয়োজনীয় অর্থাভাবে বন্ধ হচ্ছে । এ বিষয় বিনোদ চন্দ্র মণ্ডল বলেন, ইংরেজ শাসনামল ১৮৫১ সালে থেকে এ বাড়ির পূজা হয়ে আসছে। এ বছর অর্থ ও প্রয়োজনীয় জনবল কাঠামোর অভাবে পূজা হচ্ছে না।  

জানা গেছে, গত দুই বছর মহামারি করোনার কারণে নিয়মরক্ষার পূজা উদযাপিত হলেও এ বছর ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনায় ও কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে উদযাপিত হবে। এ তথ্য  জানায় উপজেলা আয়োজকদের পক্ষে পূজা উদযাপন পরিষদ।  

বেতাগী উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি পরেশ চন্দ্র কর্মকার মুঠোফোনে বলেন, মহামারি করোনার কারণে গত দুই বছর সব নিয়ম-কানুন ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে নিয়মরক্ষার পূজা হয়েছে। এ বছর বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনায় শারদীয় দুর্গাপূজা হচ্ছে। গত বছরের তুলনায় এবার চারটি পূজামণ্ডপের সংখ্যা বেড়েছে ।

বেতাগী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শাহ আলম হাওলাদার বলেন, দুর্গাপূজা উপলক্ষে পূজামণ্ডপগুলোতে সার্বক্ষণিক পুলিশ মোতায়েন থাকবে ও কঠোর নিরাপত্তা বিদ্যমান থাকবে।



সাতদিনের সেরা