kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০২২ । ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১০ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

বুলেটে নয়, মাথায় আঘাত লেগে মৃত্যু হয় শাওনের : পুলিশ

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি   

২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ১৬:৩৭ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বুলেটে নয়, মাথায় আঘাত লেগে মৃত্যু হয় শাওনের : পুলিশ

মুন্সীগঞ্জে বিএনপি-পুলিশ সংঘর্ষে নিহত যুবদল কর্মী শাওন বুলেটে নয়, মাথায় আঘাতজনিত কারণেই মারা গেছেন। নিহত শাওনের মাথায় বা শরীরের কোথাও গুলি বা গান পাউডারের চিহ্ন পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছে ময়নাতদন্ত রিপোর্ট।

ময়নাতদন্ত রিপোর্টের বরাতে মুন্সীগঞ্জ পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মাহফুজর রহমান আল মামুন আজ মঙ্গলবার দুপুরে তার সম্মেলন কক্ষে এক প্রেসব্রিফিং এ কথা জানিয়েছেন। তিনি বলেন, মৃত্যু সনদে কেন বুলেট লেখা হয়েছিল তা নিয়ে তদন্ত চলছে।

বিজ্ঞাপন

 

এ সময় পুলিশ সুপার মাহফুজ আল মামুন জানান, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ বিজ্ঞ এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেটের সামনে নিহত শাওনের মৃতদেহের সুরতহাল সম্পন্ন করে ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের ফরেনসিক বিভাগে হস্তান্তর করে। ফরেনসিক বিভাগ মৃতের সুরতহাল ও ভিসেরা রিপোর্ট পর্যালোচনায় মাথায় আঘাতজনিত কারণে মৃত্যু হয়েছে মর্মে মতামত প্রদান করেন ময়নাতদন্ত রিপোর্ট। মাথার পেছনে থেতলানো আঘাত রয়েছে বলে উল্লেখ্য আছে রিপোর্টে। এ ছাড়া গান শুটের কোনো আঘাত নেই এমন দাবি করে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনার বিষয়টি বিজ্ঞ আদালতে অবহিত করে। ইতোমধ্যে তদন্ত কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে বলেও জানান।

তিনি আরো বলেন, নিহত শাওনের পরিবারকে ন্যায় বিচার প্রদান করতে বদ্ধপরিকর জেলা পুলিশ। নিহত শওনের পরিবার থেকে যদি কোনো অভিযোগ পাওয়া যায় তাহলে আইনি সহায়তার সবরকম ব্যবস্থা নেবে জেলা পুলিশ।

সংবাদ সন্মেলনে বলা হয়, গত ২১ সেপ্টেম্বর বিকালে মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার মুক্তারপুরে পুলিশের সঙ্গে বিএনপির সংঘর্ষে পুলিশকে লক্ষ্য করে ঠিল ছুঁড়েছিলেন যুবদল কর্মী শহিদুল ইসলাম শাওনসহ অন্যকর্মীরা। এক পর্যায়ে খলি হাতে সামনে এগিয়ে গিয়ে ট্রাকের সামনে লাঠি আনার চেষ্টা করেন শাওন। এমন সময় পেছেনে থাকা তার সঙ্গের অন্যকর্মীদের ছোড়া ইটের আঘাতে লুটিয়ে পড়েন শাওন। এ সময় ধোয়াও দেখা যায়। সমাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এমন ভিডিও ভাইরাল হয়েছে।

পুলিশ সুপার বলেন, বুলেট ফায়ার করলে কখনো ধোয়া বের হবে না। এটি কিসের ধোয়া ছিল তাও তদন্ত করা হচ্ছে। নিহত শাওনের সুরতহাল রিপোর্ট, ভিসেরা রিপোর্ট এবং ময়নাতদন্ত রিপোর্ট পর্যালচনায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের ফরেনসিক বিভাগ থেকে চূড়ান্ত রিপোর্ট প্রকাশ করেছে। সেখানে শাওন মাথায় আঘাতের কারণে মারা যান বলে উল্লেখ পাওয়া গেছে। বিশেষজ্ঞ ডাক্তারা যখন মতামত দিয়ে দেন সেটা আমাদের জন্য চূড়ান্ত বলে বিবেচিত হবে।

সংঘর্ষের পর ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২২ সেপ্টেম্বর শাওন মারা যার। ২৭ সেপ্টেম্বর রাতে ময়নাতদন্তের রিপোর্ট আসে পুলিশের হাতে।

বিএনপি দাবি, নিহত শাওন ৮ নম্বর ওয়ার্ড যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। মাথায় গুলি লাগার কারণে তার মৃত্যু হয়েছে।



সাতদিনের সেরা