kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০২২ । ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

পঞ্চগড়ে নৌকাডুবি

করতোয়ায় মৃত ২০ জনের পরিচয় মিলেছে, এখনো নিখোঁজ অনেকে

পঞ্চগড় প্রতিনিধি   

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ২০:৩৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



করতোয়ায় মৃত ২০ জনের পরিচয় মিলেছে, এখনো নিখোঁজ অনেকে

নদীর পারে নিহতদের পাশে স্বজনদের আহাজারি। ছবি : কালের কণ্ঠ

পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলায় করতোয়া নদীতে নৌকাডুবির ঘটনায় ২৪ জনের লাশ উদ্ধার হয়েছে। নিহতদের মধ্যে ২০ জনের পরিচয় প্রকাশ করেছে পুলিশ। এ দুর্ঘটনায় এখনো নিখোঁজ রয়েছে অনেকে।

রবিবার বেলা দেড়টার দিকে উপজেলার মাড়েয়া বামনহাট ইউনিয়নের আউলিয়া ঘাট এলাকায় এ নৌকাডুবি ঘটে।

বিজ্ঞাপন

মারা যাওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে আট শিশু, চার পুরুষ ও ১২ নারী রয়েছে। তাদের মধ্যে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়ার পর আটজনের মৃত্যু হয়েছে। বাকি ১৬ জনের লাশ নদীর পারে রাখা হয়েছে।

নিহতরা হলো পলি রানী (১৪), লক্ষী রানী (২৫), অমল চন্দ্র (৩৫), শোভা রানী (২৭), দিপঙ্কর (৩), প্রিয়ন্ত (৩), খুকী রানী (৩৫), প্রমিলা রানী (৫৫), তারা রানী (২৪), শোনেকা রানী (৬০), ফাল্গুনী রানী (৫৫), প্রমিলা রানী (৭০), ধনো বালা (৪৭), সুমিত্রা রানী (৫৭), সফলতা রানী (৪০), সিমলা রানী (৩৫) হাসান আলী, (৫২), এক বছরের শিশু উশসী, তনুশ্রী, শ্রেয়সী।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, দুর্গোৎসবের মহালয়া উপলক্ষে মাড়েয়া বাজার এলাকার আউলিয়া ঘাট থেকে ৭০-৮০ জনের মতো মানুষ নিয়ে শ্যালো ইঞ্জিনচালিত একটি নৌকা বড়শশী ইউনিয়নের বদেশ্বরী মন্দিরের দিকে যাচ্ছিল। ঘাট থেকে নৌকাটি নদীর পানির গতিতে কিছুদূর যাওয়ার পর দুলতে থাকে। এ সময় মাঝি নৌকাটি ঘাটে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করেন। একপর্যায়ে নৌকাটি ডুবে যায়। নৌকার যাত্রীদের অনেকেই সাঁতরে তীরে ওঠে। তবে নৌকার যাত্রীরা বেশির ভাগ নারী ও শিশু হওয়ায় তারা নদীতে ডুবে যায়। পরে স্থানীয় লোকজন খবর পেয়ে উদ্ধারকাজে যোগ দেয়।

এ ঘটনায় জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিহতদের পরিবারের সদস্যদের বিশ হাজার টাকা ও আহতদের পাঁচ হাজার টাকা করে সহায়তা দেওয়া হবে বলে জানা গেছে।

একই সঙ্গে নৌকাডুবির ঘটনায় পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। এতে পঞ্চগড়ের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট অথৈ আদিত্যকে আহ্বায়ক করা হয়েছে। কমিটিকে সাত কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

জেলা প্রশাসক মো. জহুরুল ইসলাম বলেন, ‘ধারণক্ষমতার চেয়ে অনেক বেশি যাত্রী নৌকাটিতে ছিল। ছোট নৌকায় অতিরিক্ত যাত্রী তোলার কারণে এই দুর্ঘটনা ঘটেছে। আমাদের উদ্ধারকাজ পাঁচ ঘণ্টাব্যাপী চলেছে। তবে কেউ নিখোঁজ থাকলে তাদের স্বজনদের যোগাযোগের জন্য মাড়েয়া বামনহাট ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে একটি কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে। ’



সাতদিনের সেরা