kalerkantho

শনিবার । ১ অক্টোবর ২০২২ । ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

এমপি বাবলুকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা আওয়ামী লীগের

শাজাহানপুর (বগুড়া) প্রতিনিধি   

২২ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ২২:২৫ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



এমপি বাবলুকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা আওয়ামী লীগের

উপজেলা আওয়ামী লীগের বিক্ষোভ মিছিল। ছবি- কালের কণ্ঠ।

বগুড়া-৭ (গাবতলী-শাজাহানপুর) আসনের সংসদ সদস্য রেজাউল করিম বাবলুকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেছে শাজাহানপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ।

আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলার মাঝিড়া বন্দর এলাকায় উপজেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সগঠনের উদ্যোগে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ সমাবেশ থেকে এই ঘোষণা করা হয়। সমাবেশ শেষে এমপি বাবলুর কুশপুত্তলিকা দাহ করা হয়েছে।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, রেজাউল করিম বাবলু একজন দুর্নীতিবাজ এমপি।

বিজ্ঞাপন

যিনি টাকার বিনিময়ে সরকারের বিভিন্ন বরাদ্দ বিক্রি করে দেশের উন্নয়নকে বাধাগ্রস্ত করছেন। এই অনিয়ম দুর্নীতির প্রতিবাদ করতে গিয়ে যুবলীগ, শ্রমিক লীগ নেতারা এমপির লেলিয়ে দেওয়া সন্ত্রাসী বাহিনীর হামলার শিকার হয়েছেন। উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সোহরাব হোসেন ছান্নুকে এমপি বাবলু পিস্তল তাক করে হত্যার হুমকি দিয়েছেন।

তারা আরো বলেন, এই দুর্নীতিবাজ এমপির শাজাহানপুরে স্থান নেই। তাকে শাজাহানপুর থেকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করা হলো। যতদিন পর্যন্ত এই দুর্নীতিবাজ এমপির বিচার না হবে ততদিন পর্যন্ত আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের আন্দোলন কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তালেবুল ইসলামের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আব্দুল খালেক মাস্টার, নাছির উদ্দিন বাবলু, জহুরুল ইসলাম, নজরুল ইসলাম, ছাইফুল ইসলাম, মাহফুজার রহমান বাবলু, হান্নানুর রহমান, যুগ্ম সম্পাদক ফরিদুল ইসলাম মুক্তা, আলহাজ্ব ইমরান হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মোল্যা, জুলকার নাইম প্রমুখ। এসময় উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ের আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে উপজেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয় থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে ঢাকা-বগুড়া মহাসড়ক প্রদক্ষিণ শেষে মাঝিড়া বন্দর এলাকায় সমাবেশে মিলিত হয়।

উল্লেখ্য, গত বুধবার (২১ সেপ্টেম্বর) সকালে শাজাহানপুর উপজেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় যোগ দেয়ার জন্য সংসদ সদস্য রেজাউল করিম বাবলু তার পিএস ও তার লোকজন নিয়ে উপজেলা পরিষদে আসেন। এ সময় উপজেলা যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক বাদশা আলমগীর এমপির কাছে বরাদ্দের জন্য দেওয়া টাকা ফেরত চান। এ নিয়ে বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন। একপর্যায়ে উভয় পক্ষের মধ্যে মারপিটের ঘটনা ঘটে।

এমতাবস্থায় হৈচৈ শুনে চলমান আইন শৃঙ্খলা মিটিং থেকে উপজেলা চেয়ারম্যান সোহরার হোসেন ছান্নু দ্রুত বের হয়ে বিষয়টি জানার চেষ্টা করেন এবং সবাএক নিবৃত করার চেষ্টা করেন। বিষয়টি নিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করলে এক পর্যায়ে এমপি বাবলু তার তার লাইসেন্সকৃত ব্যক্তিগত পিস্তল বের করে উপজেলা চেয়ারম্যানকে তাক করেন। খবর পেয়ে পুলিশ ও পরিষদের লোকজন এগিয়ে এসে পরিবেশ শান্ত করেন।



সাতদিনের সেরা