kalerkantho

রবিবার । ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ । ১০ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ২৮ সফর ১৪৪৪

কৃষক রনজু হত্যা মামলার আসামিকে হত্যা

ধুনট (বগুড়া) প্রতিনিধি   

১৪ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ২১:২৪ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কৃষক রনজু হত্যা মামলার আসামিকে হত্যা

ছবি- নিহত সুলতান আলী।

বগুড়ার ধুনট উপজেলায় কৃষক রনজু হত্যা মামলার প্রধান আসা্মি সুলতান আলীকে (৩২) কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। আজ বুধবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে উপজেলার শৈলমারী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত সুলতান আলী উপজেলার এলাঙ্গী ইউনিয়নের শৈলমারি গ্রামের আলতাব আলীর ছেলে।

থানা পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সুলতান আলী আজ সন্ধ্যার দিকে বাড়ি থেকে ৪০০ মিটার দূরে জলাশয়ের ভেতর কারেন্ট জাল দিয়ে মাছ শিকার করতে যান।

বিজ্ঞাপন

এসময় দুর্বৃত্তরা তার উপর আক্রমণ করে কোপাতে থাকে। একপর্যায়ে সুলতান আলী মৃত্যু নিশ্চিত করে দুর্বৃত্তরা সেখান থেকে সটকে পড়ে।

স্থানীয় লোকজন সেখানে মাছ শিকার করতে গিয়ে বিষয়টি টের পেয়ে পুলিশকে সংবাদ দেন। পুলিশ রাত ৮টার দিকে ঘটনাস্থলে পৌঁছে লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করছে।

জানা গেছে, সুলতান আলী এলাকার চিহ্নিত মাদক কারবারি। তার বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনসহ বিভিন্ন অপরাধে একাধিক মামলা রয়েছে। এলাকায় মাদকদ্রব্য ব্যবসার প্রতিবাদী ছিল একই গ্রামের মোকছেদ আলীর ছেলে কৃষক রজনু মিয়া। সুলতান ও তার সহযোগীদের মাদক কারবারের বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছিল কৃষক রনজু।

এ অবস্থায় ২০২০ সালের ৩১ জানুয়ারি সন্ধ্যায় রনজু মিয়া বাড়ির অদূরে নিজের জমিতে পাওয়ার টিলার দিয়ে জমি চাষ করছিলেন। রাত ৯টার দিকে সুলতান ও তার সহযোগীরা জমির ভেতর রনজুকে কুপিয়ে আহত করে পালিয়ে যায়। স্বজনরা রনজুকে উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে রাত ১টায় তার মৃত্যু হয়।

এ ঘটনায় নিহত রনজুর স্ত্রী শিরিনা খাতুন বাদী হয়ে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। ওই মামলার প্রধান আসামি সুলতান আলী। ২০২০ সালের ২১ নভেম্বর থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে ঢাকার কাফরুল থানা এলাকার একটি ভাড়া বাসা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠায়। বর্তমানে মামলাটি আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। ওই মামলায় সুলতান আলী জামিনে বেরিয়ে আসেন।

ধুনট থানার পরিদর্শক (তদন্ত) রাজ্জাকুল ইসলাম বলেন, 'সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে নিহতের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করা হচ্ছে। তবে এ হত্যাকাণ্ডের কারণ এখনো জানা যায়নি। হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িতদের সনাক্ত ও গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। '



সাতদিনের সেরা