kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৬ অক্টোবর ২০২২ । ২১ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

আগুনে পুড়ে মারা গেল সাড়ে ৩০০ পাখি!

শরণখোলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি   

১ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ২০:৪০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আগুনে পুড়ে মারা গেল সাড়ে ৩০০ পাখি!

বাগেরহাটের শরণখোলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সংলগ্ন একটি মার্কেটে ভয়াবহ আগুনে একটি বসতঘর, দুটি পাখি হাউস ও পাঁচটি দোকান সম্পূর্ণ পুড়ে গেছে। বৃহস্পতিবার (১ সেপ্টম্বর) ভোর ৫টার দিকে এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। প্রায় তিন ঘণ্টা চেষ্টার পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। শর্ট সার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত বলে ফায়ার সার্ভিস সূত্র জানিয়েছে।

বিজ্ঞাপন

ক্ষতিগ্রস্তদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, আগুনে ওলিউল্লাহ হাওলাদারের দুটি পাখি হাউসের খাঁচায় রাখা বিভিন্ন জাতের দুই শতাধিক কবুতর ও দেড় শ লাভ বার্ড পুড়ে মারা যায়। এতে তার প্রায় আট লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। এ ছাড়া জাহাঙ্গীর শাহর হাসান গার্মেন্টের প্রায় ৩৫ লাখ, ওহিদুজ্জামান লিটনের ফার্নিচারের শোরুমে ১২ লাখ, মোস্তফা হাওলাদারের ফার্নিচারের শোরুমে ১৮ লাখ, স্কুল শিক্ষক জাকির খানের বসতঘর ও মালামাল পুড়ে তিন লাখ এবং দুটি ঘরে রাখা সৌদিপ্রবাসী জামাল নূর হাওলাদারের বহুতল ভবনের লিফটের ২২ লাখ টাকার বিভিন্ন যন্ত্রাংশ পুড়ে যায়। আগুনে ৯৮ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি করেছেন ক্ষতিগ্রস্তরা।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, থানা ও হাসপাতাল মসজিদ থেকে ফজরের নামাজ শেষে মুসল্লিরা রাস্তায় বের হয়েই দোকানগুলোতে দাউদাউ করে আগুন জ্বলতে দেখেন। এ সময় স্থানীয় ফায়ার সার্ভিস স্টেশনে খবর দেন তারা।

শরণখোলা ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শেখ ফিরোজ আলী জানান, তারা অগ্নিকাণ্ডের খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে যান। ভোর ৫টা থেকে সকাল ৮টা পর্যন্ত প্রায় তিন ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নেভাতে সক্ষম হন। শর্ট সার্কিট থেকে আগুন লেগেছে বলে তাদের ধারণা। ক্ষয়ক্ষতির সঠিক হিসাব তারা জানাতে পারেননি।

শরণখোলা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. রায়হান উদ্দিন শান্ত ও নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. নূর-ই আলম সিদ্দিকী বলেন, ‘সকালে অগ্নিকাণ্ড এলাকা পরিদর্শন করে ক্ষদিগ্রস্তদের সঙ্গে কথা বলেছি। জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে বিধি অনুযায়ী ক্ষতিগ্রস্তদের আর্থিক সহায়তা দেওয়া হবে। ’



সাতদিনের সেরা