kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৬ অক্টোবর ২০২২ । ২১ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

বিএনপির কার্যালয় ভাঙচুর, ৭ মোটরসাইকেলে অগ্নিসংযোগ ককটেল বিস্ফোরণ

মাগুরায় বিএনপি ও যুবলীগ-ছাত্রলীগ সংঘর্ষ

মাগুরা প্রতিনিধি   

২৭ আগস্ট, ২০২২ ২০:৩৯ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বিএনপির কার্যালয় ভাঙচুর, ৭ মোটরসাইকেলে অগ্নিসংযোগ ককটেল বিস্ফোরণ

মাগুরা শহরের ভায়নায় বিএনপি ও যুবলীগ-ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের মাঝে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে কয়েক দফা পাল্টাপাল্টি ধাওয়া, ইট পাটকেল নিক্ষেপ হয়। পরে উপজেলা পরিষদের পাশে বিএনপির অস্থায়ী কার্যালয় ভাঙচুর, সাতটি মোটরসাইকেল, একটি অটোরিকশায় অগ্নিসংযোগসহ ককটেল বিষ্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এতে উভয় পক্ষের অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

এ ঘটনায় পুলিশ বিএনপির ছয় কর্মীকে আটক করে।

প্রত্যক্ষদর্শরা জানান, আজ শনিবার বিকেল তিনটার দিকে কেন্দ্র ঘোষিত বিক্ষোভ কর্মসূচি পালনের জন্য উপজেলা পরিষদের সামনে বিএনপির অস্থায়ী কার্যালয়ে জড়ো হয় জেলা বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীরা। একই সময় যুবলীগ-ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা মিছিল নিয়ে বিএনপির কার্যালয়ের সামনে আসলে সংঘর্ষ বেধে যায়। এ সময় সংঘর্ষ চলাকালে উভয় পক্ষের ১০ জন আহত হন। এ ছাড়া সাতটি মোটরসাইকেলে অগ্নিসংযোগ ও ককটেল বিষ্ফোরণের ঘটনা ঘটে। ভাঙচুর করা হয় বিএনপির কার্যালয়টি।

আহতদের মধ্যে আমিন (২২), ইভান (২৩), সাব্বির (২৪), ইমনকে (২২), মাগুরা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তারা প্রত্যেকে ছাত্রলীগের নেতাকর্মী জানা গেছে। অন্যরা বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসা নিয়েছে। সংঘর্ষ চলাকালে গোটা এলাকায় আতংক ছড়িয়ে পড়ে। সদর উপজেলা পরিষদের দু'পাশে ঢাকা-খুলনা ও ঢাকা-ঝিনাইদহ মহাসড়কের দু'পাশে শত শত যানবহন আটকে যায়। বন্ধ হয়ে যায় দোকান পাট। এক পর্যায়ে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে।

এ বিষয়ে জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক ফজলুর রহমান জানান, মাগুরা পৌরসভার এক ও দুই নম্বর ওয়ার্ডে জাতীয় শোক দিবসের পালন শেষে ছাত্রলীগ, অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা একটি মিছিল নিয়ে শহরে ফিরছিলেন। পথিমধ্যে সদর উপজেলা পরিষদের পাশে জেলা বিএনপির অস্থায়ী কার্যালয় থেকে অতর্কিত বোমা হামলা ও ইট পাটকেল নিক্ষেপ করে বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা। এ সময় আমাদের যুবলীগ, ছাত্রলীগ, কৃষক লীগসহ অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা তাদেরকে প্রতিহত করতে গিয়ে হামলার শিকার হয়।

জেলা যুবদলের সভাপতি ওয়াশিকুর রহমান কল্লোল বলেন, উপজেলা পরিষদের পাশে জেলা বিএনপি'র অস্থায়ী কার্যালয়ে পুলিশি প্রহরায় আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। এ কর্মসূচি চলাকালে যুবলীগ-ছাত্রলীগসহ সরকারি দলের নেতাকর্মীরা অতর্কিতে হামলা চালায়। এ হামলায় আমাদের অনেক নেতাকর্মী আহত হয়। তারা আমাদের অস্থায়ী কার্যালয় ভাঙচুরসহ সাতটি মোটরসাইকেল ও একটি অটোরিক্সায় অগ্নিসংযোগ করে।

মাগুরা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুস্তাফিজুর রহমান জানান, পরবর্তি সহিংসতা এড়াতে পুলিশি টহল জোরদার করা হয়েছে। এ ঘটনায় বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের ছয়জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়।



সাতদিনের সেরা