kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ । ১২ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ৩০ সফর ১৪৪৪

১২ ঘণ্টায় চার মৃত্যু, আট কারণেই দুর্ঘটনা!

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল   

২৩ আগস্ট, ২০২২ ১৯:৪৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



১২ ঘণ্টায় চার মৃত্যু, আট কারণেই দুর্ঘটনা!

সময় ১২ ঘণ্টা। এর মধ্যে বরিশালে প্রাণ গেছে চারজনের। মৃতদের তিনজনই শিশু। সবার মৃত্যুর কারণও এক।

বিজ্ঞাপন

পৃথক পৃথক স্থানে পানিতে ডুবে মারা গেছে তারা। মৃতদেহ তাদের পরিবার নিয়ে গেছে। এ ব্যাপারে থানা পুলিশকে কেউ অবহিত করেনি। ফলে পুলিশ প্রশাসনের কাছে এ ধরনের কোনো তথ্যও নেই। এমন হরহামেশা মৃত্যু ঘটছে বরিশালে। পানিতে ডুবে রেকর্ড পরিমাণ শিশুমৃত্যুর জন্য অন্তত আটটি ঝুঁকির কথা বলেছন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা।  

গত ১২ ঘণ্টায় মৃতরা হলেন বরিশাল নগরীর ১০ নম্বর ওয়ার্ড রাজ্জাক স্মৃতি কলোনির রিকশাচালক আমির হোসেন (৫০), পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জ উপজেলার দ্বিপাশা গ্রামের অসীম চন্দ্রের ছেলে অপূর্ব চন্দ্র, বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম ফরিদপুর গ্রামের মনির হাওলাদারের ছেলে রুহান ও তার ভাই সোহান হাওলাদারের ছেলে সাইমুন।

বরিশাল ফায়ার সার্ভিসের লিডার জহির রায়হান ও বরিশাল সদর নৌ-থানার ওসি হাসনাত জামানসহ সংশ্লিষ্ট থানার কর্তাব্যক্তিরা এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে শিশুদের সাঁতার শেখানো নিয়ে কাজ করে কাজী এনায়েত হোসেন শিপলু নামের এক ব্যক্তি। তিনি বিভিন্ন গবেষণা ও জরিপের উদ্ধৃতি দিয়ে বলেন, চারদিকে বিভিন্ন ধরনের জলাশয়, বিশেষ করে পুকুর, নদী, ডোবা, খাল, বিল রয়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বিপজ্জনক বাড়ির পাশের পুকুর। তবে ৮০ শতাংশ দুর্ঘটনা পুকুরেই হয়।



সাতদিনের সেরা