kalerkantho

মঙ্গলবার । ৪ অক্টোবর ২০২২ । ১৯ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

‘বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয়েছিল তাঁর দর্শনকে হত্যার জন্য’

সিলেট অফিস   

১৯ আগস্ট, ২০২২ ২১:১২ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



‘বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয়েছিল তাঁর দর্শনকে হত্যার জন্য’

সিলেটে বঙ্গবন্ধুর শাহাতাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবসের অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেছেন, ‘বঙ্গবন্ধুকে হত্যা কোনো সাধারণ হত্যাযজ্ঞ নয়। বিশ্বের শোষিত মানুষের নেতাকে হত্যার মধ্যে দিয়ে সমাজতান্ত্রিক এবং শোষিত সমাজের সমস্ত দৃষ্টিভঙ্গিকে নষ্ট করা হয়েছে। বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয়েছিল তাঁর দর্শনকে হত্যা করার জন্য। ’ বক্তারা আরো বলেন, ‘ইতিহাসে অনেক রাজনৈতিক হত্যাকাণ্ড হয়েছে, ব্যক্তিগত আক্রোশেও হত্যা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

কিন্ত এমন নৃশংস হত্যাকাণ্ড দেখা যায়নি। ’

আজ শুক্রবার (১৯ আগস্ট) বিকেলে সিলেট জেলা পরিষদ মিলনায়তনে সম্প্রীতি বাংলাদেশ আয়োজিত ‘ আগস্ট : শোকের মাস, ষড়যন্ত্রের মাস’ আলোচনা সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন।  

সম্প্রতি বাংলাদেশের আহ্বায়ক ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায়ের সভাপতিত্বে এতে প্রধান বক্তা ছিলেন শহীদ জায়া শ্যামলী নাসরিন চৌধুরী।

সম্মিলিত নাট্য পরিষদ সিলেটের সাধারণ সম্পাদক রজত কান্তি গুপ্তের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ বক্তা ছিলেন সিলেট মহানগর আওযামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন আহমদ, জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শফিকুর রহমান চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট নাসির উদ্দিন খান, মহানগর আওয়াম লীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক জাকির হোসেন, সম্প্রতি বাংলাদেশের সদস্যসচিব অধ্যাপক মামুন আল মাহতাব স্বপ্নীল।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, ‘পঁচাত্তরের পনেরো আগস্টের পর থেকে আমরা দেখেছি বঙ্গবন্ধু বিরোধী যে রাজনৈতিক প্রক্রিয়া, যে পথ চলা শুরু হলো সেখানে বারবার বলা হয়েছে কতিপয় ঘাতক, কতিপয় দুষ্কৃতিকারী বঙ্গবন্ধুকে সাধারণ মানুষের মত হত্যা করেছিল ব্যক্তি স্বার্থে। কিন্তু এটি কোনো ব্যক্তি স্বার্থের হত্যাযজ্ঞ নয়, এটি কোনো সাধারণ লোককে হত্যা নয়। বিশ্বের শোষিত মানুষের নেতাকে হত্যার মধ্যে দিয়ে সমাজতান্ত্রিক এবং শোষিত সমাজের সমস্ত দৃষ্টিভঙ্গিকে নষ্ট করা হয়েছে। ’

বক্তারা আরো বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয়েছিল তাঁর দর্শনকে হত্যা করার জন্য। একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনার যারা বিরোধী ছিল তারা চেয়েছিল বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্যে দিয়ে বাংলাদেশটাকে মুক্তিযুদ্ধের পথ থেকে সরিয়ে দিতে। ’

এমন নৃশংস হত্যা পৃথিবীর ইতিহাসে নেই মন্তব্য করে বক্তারা বলেন, ‘পৃথিবীর ইতিহাসে এমন কোনো নজির আছে কিনা আমাদের জানা নেই। রাজনৈতিক হত্যা হয়-হয়েছে, ইতিহাসে আছে। ব্যক্তিগত আক্রোশেও হত্যা হয়, ইতিহাসে আছে। কিন্তু একেবারে নির্বংশ করার মতো এমন নারকীয় হত্যাযজ্ঞ আমরা ইতিহাসে দেখিনি। যেখানে দশ বছরের শিশু, গর্ভবতী নারী কাউকে রেহাই দেওয়া হয়নি। ’

বক্তারা এমন নৃশংস হত্যাযজ্ঞের কথা, পঁচাত্তরের পনের আগস্টের কথা বারবার বলার এবং শোনার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘এ ঘটনার বারবার বলতে হবে, বারবার শোনতে হবে। তা না হলে নতুন প্রজন্ম, প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম এ ইতিহাস জানতে পারবে না।  



সাতদিনের সেরা