kalerkantho

বুধবার । ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ । ১৩ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

কুলাউড়ার লংলা আধুনিক ডিগ্রি কলেজ

শিক্ষিকাকে মারধর, সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ

অভিযুক্ত গ্রেপ্তার

অনলাইন ডেস্ক   

১৪ আগস্ট, ২০২২ ০১:১২ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



শিক্ষিকাকে মারধর, সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ

মৌলভীবাজারের কুলাউড়ার লংলা আধুনিক ডিগ্রি কলেজের সহকারী অধ্যাপক নাজমা বানু ও তাঁর স্বামী অবসরপ্রাপ্ত যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা আব্দুল মতলিবকে মারধর করা হয়েছে। বাসার মালিকের সঙ্গে পানির সমস্যাকে কেন্দ্র করে বাসাটির মালিকের ছোট ভাই রাশেদ আহমদ চৌধুরী (৪০) গত শুক্রবার রাতে তাঁদের মারধর করেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

এই ঘটনায় লংলা কলেজের শিক্ষার্থীরা গতকাল শনিবার সকালে ক্লাস বর্জন করে অভিযুক্ত রাশেদকে গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে কলেজের সামনে কুলাউড়া-রবিরবাজার সড়ক অবরোধসহ বিক্ষোভ শুরু করেন। এতে সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত সড়ক দিয়ে যান চলাচল বন্ধ থাকে।

বিজ্ঞাপন

খবর পেয়ে সাবেক সংসদ সদস্য নবাব আলী আব্বাছ খান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহমুদুর রহমান খোন্দকার ও থানার ওসি মো. আব্দুছ ছালেক, পরিদর্শক (তদন্ত) মো. আমিনুল ইসলাম ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। পরে দুপুরে পুলিশ উপজেলার পালগ্রাম থেকে রাশেদকে গ্রেপ্তার করলে শিক্ষার্থীরা তাঁদের আন্দোলন প্রত্যাহার করেন।

গতকাল সকালে নাজমা বানু বাদী হয়ে রাশেদ আহমদ চৌধুরীকে অভিযুক্ত করে কুলাউড়া থানায় একটি মামলা করেন।  

ওসি মো. আব্দুছ ছালেক বলেন, শিক্ষিকা নাজমা বানুকে মারধর করে আসামি রাশেদ আত্মগোপনে চলে যান। রাশেদকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে।  

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, লংলা আধুনিক ডিগ্রি কলেজের যুক্তিবিদ্যা বিভাগের শিক্ষক নাজমা বানু কলেজের সামনে মুদিপুর এলাকায় মৃত আব্দুল কাদিরের ছেলে শামীম আহমদ চৌধুরীর বাসায় ছয় বছর ধরে ভাড়া থাকেন। মাসখানেক আগে শামীম প্রবাসে চলে যাওয়ায় বাসাটি দেখাশোনা করেন তাঁর ছোট ভাই রাশেদ।  

সম্প্রতি নাজমা বানুর বাসার খাবার পানির লাইন বন্ধ করে দেন রাশেদ। রাশেদের মামা আমুদ মিয়াকে বিষয়টি শুক্রবার জানান নাজমার স্বামী। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে শুক্রবার রাত ৯টার দিকে নাজমা ও তাঁর স্বামীকে মারধর করে বাসায় অবরুদ্ধ করে রাখেন রাশেদ। খবর পেয়ে পুলিশ নাজমাকে উদ্ধার করে কুলাউড়া হাসপাতালে ভর্তি করে।  

নাজমা বানু গতকাল বিকেলে গণমাধ্যমকে বলেন, ‘রাশেদ আমার অসুস্থ স্বামীকে গালাগাল করে ও কিল-ঘুষি মেরে মাটিতে ফেলে দেয়। আমি বাধা দিলে সে আমাকেও মাথায় আঘাত করে। এতে আমি অচেতন হয়ে পড়ি। ’ 

কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো. আতাউর রহমান বলেন, ‘কলেজের শিক্ষিকার ওপর বাসার মালিকের হামলার ঘটনায় শিক্ষার্থীরা সড়ক অবরোধ ও বিক্ষোভ শুরু করলে প্রশাসনের সহযোগিতায় আমরা শিক্ষার্থীদের বুঝিয়ে ক্যাম্পাসে ফিরিয়ে আনি। হামলাকারীকে আটকের পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। ’



সাতদিনের সেরা