kalerkantho

সোমবার । ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ । ১১ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ২৯ সফর ১৪৪৪

উপকূলে সুপেয় পানির অধিকার নিশ্চিতের দাবিতে মানববন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৩ আগস্ট, ২০২২ ১৫:৪৬ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



উপকূলে সুপেয় পানির অধিকার নিশ্চিতের দাবিতে মানববন্ধন

উপকূলে সুপেয় পানির অধিকার নিশ্চিত করার দাবিতে মানববন্ধন ও সমাবেশ করেছে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা লিডার্স ও স্বদেশ, সাতক্ষীরা জেলা নাগরিক কমিটি, জলবায়ু অধিপরামর্শ ফোরাম এবং শ্যামনগর, কালিগঞ্জ ও আশাশুনি উপজেলা যুব ফোরাম। আজ শনিবার (১৩ আগস্ট) সাতক্ষীরা প্রেস ক্লাবের সামনে বিশ্ব যুব বিবস পালনের অংশ হিসেবে এই কর্মসূচি পালন করা হয়।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে হুমকির মুখে পড়েছে উপকূল। উপকূলীয় নদীগুলোর লবণাক্ততা ক্রমশ বেড়ে চলেছে।

বিজ্ঞাপন

সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধির ফলে উপকূলীয় পানির উৎসগুলো লবণাক্ত হয়ে পড়ায় পানের অযোগ্য হয়ে পড়ছে। ফলে উপকূলীয় জেলাগুলোতে সুপেয় পানির সংকট বেড়েই চলেছে।

পানির সংকট তুলে ধরে বক্তারা বলেন, বেড়িবাঁধ দুর্বল হওয়ার কারণে লবণপানি ঢুকে চাষযোগ্য জমি, সুপেয় পানির আধারগুলো নষ্ট হচ্ছে। চারদিকে পানি, কিন্তু খাবারের পানি নেই। চারদিকে শুধু লবণপানি। খাবারের পানি সংগ্রহ করার জন্য একজন নারীকে ৪-৫ কিলোমিটার দূরে যেতে হয়, যা অমানবিক। পানি উপকূলের মানুষের অধিকার। কিন্তু উপকূলের দরিদ্র মানুষকে পানি কিনে খেতে হয়।  

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, সুপেয় পানির অভাবে মানুষ পুকুরের দূষিত পানি পান করে নানাবিধ পানিবাহিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। বিশেষ করে নারীরা স্বাস্থ্যঝুঁকিতে ভুগছে। পানি সংগ্রহ করতে নারীকে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগতে হয়। এমনকি তারা বিভিন্ন ধরনের নিপীড়নের শিকার হচ্ছে।  
উপকূলে এই সংকট সমাধানে সরকারি ও বেসরকারি উদ্যোগ থাকলেও তা যথেষ্ট নয়। এর আগে সরকারের কাছে সুপেয় পানির দাবি করা হলেও তার কোনো উদ্যোগ নেই। এ জন্য অনতিবিলম্বে উপকূলীয় এলাকায় সুপেয় পানির সংকট সমাধান করতে হবে।  

বক্তারা আরো বলেন, উপকূলে টেকসই বেড়িবাঁধ নির্মাণ করতে হবে। উপকূলে জলাধার সংরক্ষণ ও নারীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ ও উন্নয়ন বোর্ড গঠন করে উপকূলীয় এলাকাকে দুর্যোগ ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা ঘোষণা করতে হবে।

এই মানববন্ধন ও সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন সাতক্ষীরা জেলা জলবায়ু অধিপরামর্শ ফোরামের সভাপতি ও শিক্ষাবিদ আব্দুল হামিদ। বক্তৃতা করেন সাতক্ষীরা নাগরিক কমিটির আহ্বায়ক ও ফোরামের সদস্য আবুল কালাম আজাদ, সিডোর নির্বাহী পরিচালক শ্যামল বিশ্বাস, চুপড়িয়া মহিলা সংস্থার সভানেত্রী মরিয়ম মান্নান, সুন্দরবন ফাউন্ডেশনের পরিচালক আফজাল হোসেন, আব্দুস সামাদ, প্রতিবন্ধী কল্যাণ সমিতির পরিচালক আবুল কালাম, উত্তরণের মো. মনির উদ্দীন, যুব ফোরামের মো. মাসুদ রানা, উত্তরণের প্রকল্প সমন্বয়কারী নাজমিন নাহার, স্বদেশের গোবিন্দ মুণ্ডা, কালীগঞ্জ উপজেলা যুব ফোরামের সভাপতি হারুন অর রশিদ, সদস্য শাহানাজ পারভীন, শ্যামনগর উপজেলা যুব ফোরামের সভাপতি মো. মমিনুর রহমান, সদস্য ও স্বর্ণ কিশোরী সুমাইয়া পারভীন, লিডার্সের প্রকল্প সমন্বয়কারী মো. শওকত হোসেন প্রমুখ। সঞ্চালনা করেন জলবায়ু অধিপরার্শ ফোরামের সদস্যসচিব ও স্বদেশের নির্বাহী পরিচালক মাধব চন্দ্র দত্ত।



সাতদিনের সেরা