kalerkantho

রবিবার । ২ অক্টোবর ২০২২ । ১৭ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

রাবির আবাসিক এলাকা থেকে বিষধর খৈয়া গোখরা উদ্ধার

রাবি প্রতিনিধি   

১২ আগস্ট, ২০২২ ১০:০১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাবির আবাসিক এলাকা থেকে বিষধর খৈয়া গোখরা উদ্ধার

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক এলাকা পূর্বপাড়া কোয়ার্টার থেকে চার-পাঁচ হাত লম্বা একটি বিষধর খৈয়া গোখরা সাপ উদ্ধার করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১০টার দিকে রাবি শিক্ষার্থী মিজানুর রহমান মিজান সাপটি উদ্ধার করেন।

জানা গেছে, সবুজের অভয়ারণ্য ৭৫৩ একর আয়তনের রাবি ক্যাম্পাসে রয়েছে অনেকগুলো ডোবা, নালা, পুকুর, ঝোপঝাড়। হারহামেশাই এখানে বিভিন্ন প্রজাতির সাপ চোখে পড়ে।

বিজ্ঞাপন

কখনো ঝোপঝাড় বা কখনো লোকালয়ে বিভিন্ন প্রজাতির সাপ দেখা যায়। এসব সাপের মধ্যে রয়েছে খৈয়া গোখরা, কালাচ, ঘরগিন্নি, বেত আছড়া, হেলে, মেটে, জল ঢোড়াসহ নানা রকমের প্রজাতি। প্রায়ই এসব সাপ উদ্ধার করা হয় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন হল, একাডেমিক ভবন ও কোয়ার্টার থেকে।

সাপ উদ্ধারের বিষয়ে মিজান বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের পূর্বপাড়া থেকে আমার মোবাইলে একটি ফোন আসে। ফোনে আমাকে জানানো হয়, তাদের বাড়ির সিঁড়িঘরে একটা সাপ প্রবেশ করেছে। তাৎক্ষণিক আমি উদ্ধার সরঞ্জাম নিয়ে সেই বাড়িতে উপস্থিত হই। গিয়ে দেখি এটা একটি খৈয়া গোখড়া। পরবর্তিতে ১০-১৫ মিনিটের মধ্যে সাপটা উদ্ধার করি। বর্তমানে সাপটি আমার রুমে কৌটায় রেখে দিয়েছি। কালকে সকালে নিরাপদ স্থানে অবমুক্ত করবো। এটি একটি মারাত্মক বিষধর সাপ ছিল। এই সাপের কামড়ে কিছুক্ষণের মধ্যেই মানুষ মারা যেতে পারে।

মিজানুর রহমান মিজান রাবির ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী। যুক্ত আছেন ডিপ ইকোলজি অ্যান্ড স্নেক রেসকিউ ফাউন্ডেশন নামের সাপ ও পরিবেশ নিয়ে কাজ করা একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সঙ্গে। সংগঠনটির একমাত্র রাবি প্রতিনিধি তিনি। সংগঠনটির প্রশিক্ষণের মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিনি বিভিন্ন ধরনের সাপ উদ্ধার করেছেন। যার মধ্যে তীব্র বিষধর কালাচ সাপও রয়েছে।



সাতদিনের সেরা