kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১১ আগস্ট ২০২২ । ২৭ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১২ মহররম ১৪৪৪

কৃষি কর্মকর্তার বিরুদ্ধে কৃষকের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি   

২৮ জুলাই, ২০২২ ১৯:০৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কৃষি কর্মকর্তার বিরুদ্ধে কৃষকের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

কালীগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শিকদার মো. মোহায়মেন আক্তারের বিরুদ্ধে রাজস্ব খাতের কৃষকের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ পাওয়া গেছে। প্রান্তিক কৃষকের ধান, সরিষা ও ভুট্টা পরিচর্যা বাবদ দেড় হাজার টাকা দেওয়ার কথা থাকলেও কৃষকের মাঝে এক হাজার ৪০০ টাকা বিতরণের অভিযোগ পাওয়া যায়।  

সংশ্লিষ্ট সূত্র বলছে, কালীগঞ্জ নিমতলা মসজিদ সংলগ্ন রনি মোবাইল ব্যাংকিং সেবাদানকারী একটি দোকান থেকে কৃষি অফিস থেকে আনা টোকেন জমা দিয়ে নগদ অথবা বিকাশে ১৪০০ টাকা বিতরণ করা হয়েছে। ২০২১-২২ অর্থবছরে মোট ৩৩৩ জন কৃষক এই সুবিধার আওতায় এলেও ২৪৩ জন কৃষকের মাঝে ১০০ টাকা কম দেওয়ার অভিযোগ তুলেছেন কৃষকরা।

বিজ্ঞাপন

এই প্রকল্প থেকে ২৪৩ জন কৃষকের কাছ থেকে ২৪ হাজার ৬০০ টাকা আত্মসাৎ করা হয়েছে।

উপজেলার নিয়ামতপুর, রাখালগাছি ইউনিয়নের কৃষক রকিব, মোমিনুর, নুরুল মালিতা, রতন ঘোষ, হামিদ, চানদালী ও সমির খাঁ'র সঙ্গে কথা হলে তারা জানান, তারা বিকাশে ১৪০০ টাকা পেয়েছেন। অথচ ১৫০০ টাকা করে প্রত্যেক কৃষকের পাওয়ার কথা ছিল বলে শুনেছি।

কালীগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শিকদার মো. মোহায়মেন আক্তার অভিযোগের বিষয়টির সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ‘এই প্রকল্পে ২৪ হাজার ৬০০ টাকা অতিরিক্ত আছে। অডিট খরচসহ আনুষঙ্গিক ব্যয় তো থাকেই, যে কারণে টাকাটা কেটে রেখেছি। বোঝেনই তো স্যাররা আছেন, তাদেরকে খুশি রাখতে হয়। ’ তিনি আরো বলেন, ‘এটা নিয়ে যখন অভিযোগ আসছে, তখন যাদের টাকা কেটে রাখা হয়েছে প্রত্যেককেই ১০০ টাকা করে আমি ফেরত দেব। ’ 

ঝিনাইদহ জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. আজগর আলী বলেন, ‘কৃষকের টাকা আত্মসাতের ঘটনা ঘটে থাকলে তা অত্যন্ত দুঃখজনক। ঘটনার সত্যতা থাকলে তদন্ত কমিটি গঠন করে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করব। ’ 

যশোর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক ড. মো. একলাছ উদ্দীন বলেন, ‘এমন ঘটনা ঘটলে তা খতিয়ে দেখা হবে। এ ধরনের কাজের সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের কোনো ছাড় দেওয়া হবে না। ’



সাতদিনের সেরা