kalerkantho

শনিবার । ১ অক্টোবর ২০২২ । ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

মোবাইল কোর্টে জরিমানা

টাঙ্গুয়ার হাওরে ভাসছে প্লাস্টিকের বর্জ্য

তাহিরপুর (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি   

১২ জুলাই, ২০২২ ১৯:৫৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



টাঙ্গুয়ার হাওরে ভাসছে প্লাস্টিকের বর্জ্য

সুনামগঞ্জের টাঙ্গুয়ার হাওরে শব্দ এবং পানি দূষণ করায় মঙ্গলবার দুপুরে পর্যটকবাহী ২২টি নৌকাকে ৩৮ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও তাহিরপুরের ইউএনও মো. রায়হান কবির টাঙ্গুয়ার হাওরে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে ২২টি মামলায় এ জরিমানা করেন।

সরেজমিনে ঘুরে ও স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, টাঙ্গুয়া হাওরে ঘুরতে আসা একশ্রেণির পর্যটক নৌকায় সাউন্ডবক্স রেখে উচ্চ শব্দে গান বাজান। এবং নিজেদের ব্যবহৃত প্লাস্টিক বর্জ্য হাওরটির পানিতে ছুঁড়ে ফেলেন।

বিজ্ঞাপন

পর্যটকদের এ আচরণে অতিষ্ট টাঙ্গুয়ার হাওরপার ও হাওর সংলগ্ন নদী তীরের বাসিন্দারা। স্থানীয় প্রশাসন থেকে এ বিষয়ে বার বার সতর্ক করা হলেও পর্যটকবাহী নৌযান চালক ও পর্যটকরা পরিবেশ রক্ষায় উদাসীনতা দেখান। অভিযোগ রয়েছে জেলার বাসিন্দা পর্যটক ও নৌযান চালকরা এসব দূষণ বেশি সৃষ্টি করেন।

স্থানীয় ট্যাকেরঘাট চুনাপাথর খনি প্রকল্প সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হালিমা বেগম বলেন, রাতের বেলায় নৌযানগুলো নিলাদ্রী লেক সংলগ্ন ট্যাকেরঘাট গেস্ট হাউজ ঘাটে অবস্থান করে। উচ্চ শব্দের কারণে আমরা স্বাভাবিক কাজকর্ম করতে পারি না। তাছাড়া ঘাটের আশপাশের এলাকা নানা ধরণের প্লাস্টিক বর্জ্যে ভরে থাকা।

টাঙ্গুয়ার হাওরের ওয়াচ টাওয়ার সংলগ্ন জয়পুর গ্রামের বাসিন্দা পরিবেশ কর্মী আহমেদ কবীর। তিনি বলেন, শব্দদূষণের কারণে ঘরে থাকা যায় না। হাওরের যেদিকে চোখ যায় শুধু প্লাস্টিক বর্জ্য। প্রশাসনের আন্তরিক চেষ্টাও নৌযান চালক ও পর্যটকদের সচেতন করা যাচ্ছে। স্থানীয় পর্যটকরা গ্রামবাসীর কথাও শুনে না।

তাহিরপুরের ইউএনও মো. রায়হান কবির বলেন, নৌযান চালক ও পর্যটকদের পরিবেশ সুরক্ষায় সচেতন করতে নানামুখী উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। দুর্গম হাওরেও নিয়মিত ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। তবুও সচেতনতা সৃষ্টি হচ্ছে না।

তিনি জানান, টাঙ্গুয়ার হাওরের পরিবেশ রক্ষায় নিয়মিত ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হবে। এবং সচেতনতা সৃষ্টি করতে আরো কার্যকরী উদ্যোগ নেওয়া হবে।



সাতদিনের সেরা