kalerkantho

সোমবার । ৮ আগস্ট ২০২২ । ২৪ শ্রাবণ ১৪২৯ । ৯ মহররম ১৪৪৪

আন্ত জেলা গরু চোর চক্রের পাঁচ সদস্য গ্রেপ্তার

কেরানীগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধি   

৩ জুলাই, ২০২২ ০১:১১ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



আন্ত জেলা গরু চোর চক্রের পাঁচ সদস্য গ্রেপ্তার

ঢাকার কেরানীগঞ্জে আন্ত জেলা গরু চোর চক্রের পাঁচ সদস্য গ্রেপ্তার ও চুরির কাজে ব্যবহৃত একটি কাভার্ডভ্যান ও একটি প্রাইভেটকার জব্দ করেছে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানা পুলিশ। এ সময় একটি চোরাই গরু উদ্ধার করা হয়।

শনিবার (২ জুলাই) সকালে সাংবাদিকদের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এসব তথ্য জানান কেরানীগঞ্জ পুলিশ সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শাহাবুদ্দিন কবীর।
 
তিনি আরো জানান, গত বেশ কিছুদিন ধরে কেরানীগঞ্জের বিভিন্ন গরুর খামার ও গৃহস্থ পরিবার থেকে একটি সংঘবদ্ধ গরু চোর চক্র গরু চুরি করে আসছিল।

বিজ্ঞাপন

গরু চোর চক্রটি গভীর রাতে সুযোগ বুঝে কখনো একটি, কখনো দুটি গরু টেনে কাভার্ডভ্যানে তুলে সুকৌশলে পালিয়ে যেত। পরবর্তী সময়ে এসংক্রান্ত দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানায় ৩টি গরু চুরির মামলা রুজু হলে পুলিশ সুপার ঢাকা মহোদয় সংঘবদ্ধ এই গরু চোর চক্রটিকে ধরার জন্য নির্দেশ প্রদান করে।

সংঘবদ্ধ এই আন্ত জেলা গরু চোর চক্রটি ধরার জন্য দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানা পুলিশ ব্যাপক তদন্ত শুরু করে। তদন্তের শুরুতে ঘটনাস্থলের আশপাশে বিভিন্ন সিসিটিভি ফুটেজ পর্যালোচনায় দেখা যায়, একই কাভার্ডভ্যান ব্যবহার করে সবগুলো গরু চুরির ঘটনা ঘটানো হয়েছে।  
পরবর্তী সময়ে পুলিশ উক্ত কাভার্ডভ্যানের সূত্র ধরে গত শুক্রবার (১ জুলাই) ভোররাতে প্রথমে বেল্লাল হোসেনকে ঢাকার খিলক্ষেত এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করে। তারপর বেল্লাল হোসেনের দেওয়া তথ্য মতে, গরু চোর দলের সর্দার দুলালকে রাজধানীর ভাটারা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। দুলালের হেফাজত থেকে চোরাই কাজে ব্যবহৃত কাভার্ডভ্যানটি জব্দ করা হয়। পরবর্তী সময়ে তথ্য-প্রযুক্তির সহায়তায় এই গরু চোর দলের অন্যতম সক্রিয় সদস্য স্বপন ও দেলোয়ারকে ভাটারা এলাকা থেকে গেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃত আসামিরা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে উল্লিখিত গরু চুরির ঘটনাগুলো স্বীকার করে এবং দুলাল এই গ্রুপের দলনেতা বলে জানা যায়। দুলালকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, দেশের বিভিন্ন এলাকায় তার নেতৃত্বে আন্ত জেলা গরু চোর চক্র সক্রিয় আছে। গরু চোররা দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে গরু চুরি করে গাড়িতে করে ঢাকায় দুলালের কাছে নিয়ে আসে। তারপর দুলাল উক্ত চোরাই গরুগুলো ঢাকার বিভিন্ন বাজারে কসাইয়ের কাছে বিক্রি করে তাদের টাকা ভাগ করে দেয়।  

দুলালকে জিজ্ঞাসাবাদের একপর্যায়ে জানা যায়, তার অধীনস্থ আরেকটি গরু চোর দল এই মুহূর্তে ময়মনসিংহ  থকে গরু চুরি করে ঢাকায় তার কাছে নিয়ে আসছে। এ তথ্য পাওয়ার পর ওই গরু চোর দলকে ধরার জন্য পুলিশ দুলালকে নিয়ে কেরানীগঞ্জের চুনকুটিয়া বেগুনবাড়ী এলাকায় ওত পেতে থাকে।

এরই ধারাবাহিকতায় শনিবার (২ জুলাই) ভোররাতে সোহেল রানা ও সবুজ নামে দুজন পেশাদার গরু চোরকে একটি প্রাইভেটকার ও একটি চোরাই গরুসহ গ্রেপ্তার করা হয়। ধৃত আসামি সোহেল ও সবুজ স্বীকার করে, তারা ময়মনসিংহ এলাকা থেকে ওই গরুটি চুরি করে প্রাইভেটকারে করে ঢাকায় দুলালের কাছে নিয়ে আসছিল।

এসংক্রান্ত একটি চুরির মামলা রুজু প্রক্রিয়াধীন আছে। গ্রেপ্তারকৃত আসামিদের নামে দেশের বিভিন্ন থানায় একাধিক গরু চুরির মামলা আছে। সংঘবদ্ধ এই আন্ত জেলা গরু চোর চক্রটি আসন্ন কোরবানির ঈদ সামনে রেখে ব্যাপক সক্রিয় হয়ে উঠেছিল বলে জানা যায়।



সাতদিনের সেরা