kalerkantho

সোমবার । ১৫ আগস্ট ২০২২ । ৩১ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১৬ মহররম ১৪৪৪

বাজারে উঠবে ২০ লাখের ‘খান বাহাদুর’

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি    

৩০ জুন, ২০২২ ১০:১৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বাজারে উঠবে ২০ লাখের ‘খান বাহাদুর’

নাম ‘খান বাহাদুর’। ওজন ও দামেও আছে বাহাদুরি। ১২০০ কেজির খান বাহাদুরের দাম হাঁকা হয়েছে ২০ লাখ টাকা। উঠবে এবার কোরবানির হাটে।

বিজ্ঞাপন

খান বাহাদুর ব্রাহমা জাতের গরু। বয়স প্রায় তিন বছর। খৈল, ভুষি, ডালসহ দেশীয় নানা জাতের খাবার খাইয়ে বড় করা হয়েছে খান বাহাদুরকে।  

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার সুলতানপুর ইউনিয়নের বিরামপুর গ্রামের মোনায়েম খানের খামারে আছে খান বাহাদুর। বেশ বড় আকারের কালো রঙের বাহাদুরকে দেখতে প্রতিদিনই ওই খামারে লোকজন আসছে। বিক্রেতা মোনায়েম খান জানিয়েছেন, শিল্প উদ্যোক্তা কিংবা কোনো ব্যবসায়ী পেলে ন্যায্য মূল্যে তিনি গরুটি বিক্রি করে দেবেন।

খামারির সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তিন বছর আগে প্রতিবেশী আব্দুস সালামের কাছ থেকে তিনি ব্রাহমা জাতের একটি বাছুর কেনেন। এর পর থেকে তিনি কাঁচা ঘাসের পাশপাশি খৈল, ভুষি, ডালসহ দেশীয় দানাদার খাবার খাইয়ে এটিকে বড় করেছেন। আকারে বড় এবং আচরণে খানদানি হওয়ায় এর নাম রাখা হয় খান বাহাদুর।  

খামারি মোনায়েম খান বলেন, 'এটা আমার খামারের সবচেয়ে বড় গরু। এটিকে সাধারণ গরুর মতোই লালন-পালন করা হয়। এক হাজার ২০০ কেজি ওজনের গরুটির বাজারদর নির্ধারণ করা হয়েছে ২০ লাখ টাকা। ' তবে প্রয়োজনে কিছু কম মূল্যে তিনি বিক্রি করবেন।

জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. এ বি এম সাইফুজ্জামান জানান, ব্রাহমা একটি বর্ধনশীল জাত। দুই বছরেই একেকটি গরু ৮০০ থেকে এক হাজার কেজি হয়ে যায়। তবে এর পালনে কিছু নিয়ম মানতে হয়। যে কারণে অনেকে পালতে চান না। এ ছাড়া এটার বাছুরের দুধের চাহিদা মেটানোও সম্ভব হয় না। মোনায়েম খান খুব যত্ন করে গরুটি লালন করেছেন।



সাতদিনের সেরা