kalerkantho

সোমবার । ১৫ আগস্ট ২০২২ । ৩১ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১৬ মহররম ১৪৪৪

সিলেটে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ৪০ হাজার ঘরবাড়ি

সিলেট অফিস    

৩০ জুন, ২০২২ ০৯:৩০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সিলেটে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ৪০ হাজার ঘরবাড়ি

ফাইল ছবি

সিলেটে চলমান বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ৪০ হাজার ৯১টি ক্ষতিগ্রস্ত বাড়িঘরের তালিকা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। গত মঙ্গলবার রাতে সিলেট জেলা প্রশাসন এ তালিকা পাঠায়। ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি নির্মাণ ও মেরামতের জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ ও অনুদান প্রদানের জন্যও অনুরোধ জানানো হয়েছে চিঠিতে। গতকাল বুধবার জেলা প্রশাসন থেকে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞাপন

 

জেলা প্রশাসন জানিয়েছে, সাম্প্রতিক সময়ে সিলেট জেলা স্মরণকালের ভয়াবহ বন্যাকবলিত হয়। বন্যায় সিটি করপোরেশনসহ ১৩ উপজেলা ও পাঁচটি পৌরসভা বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়। বন্যায় জেলার ৩০ লাখ মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়ে। এ পর্যন্ত জেলার ৬১৪টি আশ্রয়কেন্দ্রে দুই লাখ ৫২ হাজার ৭৮৪ জন মানুষ আশ্রয় নিয়েছে। প্রত্যক্ষভাবে গ্রামীণ জনপদের চার লাখ ৮৪ হাজার ৩৮৩টি পরিবারের ঘরবাড়ি ভেঙে যায় ও ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হয়। সিলেট সিটি করপোরেশন ব্যতীত জেলার ১৩টি উপজেলা থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, ৪০ হাজার ৯১টি কাঁচাবাড়ি আংশিক ও সম্পূর্ণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এ তালিকা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করা হয়েছে এবং বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর ঘরবাড়ি নির্মাণ ও মেরামতের লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ অনুদান প্রদানের জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছে। এ ছাড়া ২৮ হাজার ৯৪৫ হেক্টর ফসলের ক্ষয়ক্ষতির বিষয়ও এ চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে।  

জেলা প্রশাসন আরো জানিয়েছে, বন্যায় এ পর্যন্ত এক হাজার ৬১২ মেট্রিক টন চাল, ২০ হাজার ২১৮ প্যাকেট শুকনা খাবার এবং এক কোটি ৯২ লাখ নগদ অর্থ বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে নগদ ৬৫ লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়।  

গতকাল বুধবার পর্যন্ত এক হাজার ৫৮৭ মেট্রিক টন শুকনা খাবার, ১৯ হাজার ৯১৮টি প্যাকেট বিতরণ করা হয়েছে। এ ছাড়া দুর্যোগ মন্ত্রণালয় থেকে প্রাপ্ত এক কোটি ৯২ লাখ টাকা ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে প্রাপ্ত ৬৫ লাখ টাকা বিতরণ করা হয়েছে। বর্তমানে ২৫ মেট্রিক টন চাল ও ৩০০ বস্তা শুকনা খাবার মজুদ রয়েছে।  

সিলেট জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার (মিডিয়া সেল) আহসানুল আলম বলেন, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ির তালিকা গত মঙ্গলবার রাতে জেলা প্রশাসন থেকে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। এ ছাড়া ফসলসহ অন্যান্য ক্ষতিগ্রস্তের তালিকাও পাঠানো হয়েছে। এসব ক্ষতিগ্রস্ত বাড়িঘর ও ফসলের জন্য প্রয়োজনী অর্থ বরাদ্দের জন্য অনুরোধও জানানো হয়।



সাতদিনের সেরা