kalerkantho

শুক্রবার । ১৯ আগস্ট ২০২২ । ৪ ভাদ্র ১৪২৯ । ২০ মহররম ১৪৪৪

রাবি শিক্ষিকার সঙ্গে অশোভন আচরণ, আশিক গ্রেপ্তার

রাবি প্রতিনিধি   

২৯ জুন, ২০২২ ২১:০৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাবি শিক্ষিকার সঙ্গে অশোভন আচরণ, আশিক গ্রেপ্তার

গ্রেপ্তার রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের সদ্য বহিষ্কৃত ছাত্র আশিক উল্লাহ।

শিক্ষকের সঙ্গে অশোভন আচরণের ঘটনায় বহিষ্কার হওয়া রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষার্থী আশিক উল্লাহকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বুধবার (২৯ জিন) বিকেল সাড়ে ৪টায় মতিহার থানার পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে। পরে আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

গ্রেপ্তার আশিক বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী।

বিজ্ঞাপন

গ্রামের বাড়ি ফরিদপুর জেলার ভাঙ্গায়।

বিষয়টি নিশ্চিত করেন মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার আলী তুহিন। তিনি বলেন, 'একই বিভাগের শিক্ষিকা অধ্যাপক বেগম আসমা সিদ্দীকার দায়ের করা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন মামলায় তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বিকেলে আমাদের কাছে তাকে হস্তান্তর করে। '

এর আগে দুপুরে বিভাগের শিক্ষক বেগম আসমা সিদ্দীকা মামলা দায়ের করেন। এতে তিনি উল্লেখ করেন, 'আশিক উল্লাহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভাগে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের নিয়ে আশিকনামা নামের একটি পেইজ থেকে কুৎসা, মানহানিকর, অশ্লীল বক্তব্য প্রকাশ করে বিভাগে তাদেরকে হেয়প্রতিপন্ন করেছে। '

এদিকে শিক্ষিকা আসমা সিদ্দীকার সঙ্গে অশোভন আচরণের অভিযোগ ওঠে এক‌ই বিভাগের এক শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে। বুধবার বেলা ১১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর একাডেমিক ভবনের আইন বিভাগের ২৪৪ নম্বর কক্ষে এ ঘটনা ঘটে। পরে দুপুর ২টার দিকে বিভাগের শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের মুখে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন তাকে সাময়িক বহিষ্কার করে।

শিক্ষার্থীরা জানান, চতুর্থ বর্ষের ক্লাস চলাকালীন ইমপ্রুভমেন্টের কথা বলে ক্লাসে প্রবেশ করেন আশিক উল্লাহ। ক্লাসের শেষের দিকে তিনি ওই শিক্ষিকাকে বিব্রত করার জন্য অপ্রাসঙ্গিক প্রশ্ন করতে থাকেন। এক পর্যায়ে শিক্ষিকা ক্লাস থেকে বের হতে গেলে আশিক দরজা বন্ধ করে তাকে মারার জন্য উদ্ধত হন। পরে শিক্ষার্থীরা তাকে ক্লাসরুমে আটকে রেখে শিক্ষিকাকে উদ্ধার করেন।

বহিষ্কারের বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক আসাবুল হক বলেন, ‘আইন বিভাগের শ্রেণিকক্ষে এক ছাত্র ড. বেগম আসমা সিদ্দীকাকে হেনস্তা করেছে। এ ঘটনায় বিভাগের ‌ ছাত্র-ছাত্রীদের দাবির মুখে বিশ্ববিদ্যালয়ের সুষ্ঠু পরিবেশ, শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষার্থে অভিযুক্ত ছাত্রকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে শৃঙ্খলা কমিটি ও সিন্ডিকেটে রিপোর্ট সাপেক্ষে সাময়িক বহিষ্কারের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ’



সাতদিনের সেরা