kalerkantho

শনিবার । ১৩ আগস্ট ২০২২ । ২৯ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১৪ মহররম ১৪৪৪  

জিতুকে গ্রেপ্তারে একাধিক টিম কাজ করছে : পুলিশ সুপার

সাভার প্রতিনিধি   

২৯ জুন, ২০২২ ১৭:৩৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



জিতুকে গ্রেপ্তারে একাধিক টিম কাজ করছে : পুলিশ সুপার

সাভারের আশুলিয়ায় শিক্ষক উৎপল কুমারকে হামলার ঘটনার পঞ্চম দিনে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন ঢাকা জেলা পুলিশ সুপার। আজ বুধবার দুপুরে আশুলিয়ার চিত্রশাইলে হাজী ইউনুস আলী স্কুল অ্যান্ড কলেজে আসেন তিনি। এ সময় তিনি কলেজের শিক্ষকদের সঙ্গে কথা বলেন। একই সঙ্গে এ ঘটনায় যেন কলেজের শিক্ষা কার্যক্রম ব্যাহত না হয় সেই পরামর্শ দেন।

বিজ্ঞাপন

ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে স্থানীয় সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন ঢাকা জেলা পুলিশ সুপার মারুফ হোসেন সরদার। এ সময় তিনি সাংবাদিকদের অনেক প্রশ্নের জবাব দেন।

ঘটনার পাঁচ দিন পর পরিদর্শন কেন, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে পুলিশ সুপার বলেন, 'আজ ঘটনার পাঁচ দিন নয়। শিক্ষক মারা যাওয়ার ঘটনার তৃতীয় দিন। এর আগে আমাদের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও আশুলিয়া থানার ওসি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। '

ঘটনার সঙ্গে সঙ্গে পুলিশকে জানানো হয়নি বলেও অভিযোগ করেন পুলিশ সুপার। তিনি বলেন, পুলিশকে ঘটনার সঙ্গে সঙ্গে জানানো হয়নি। হামলার ঘটনা ঘটেছে দুপুরে আর পুলিশকে জানানো হয়েছে ওই দিন রাতে।

তিনি আরো বলেন, 'এখানে এসেছি শিক্ষকদের সঙ্গে কথা বলতে। স্কুলের স্বাভাবিক কার্যক্রম যাতে কোনওভাবেই বন্ধ না হয়। বাচ্চাদের পড়ালেখা যাতে বন্ধ না হয়, সেটা শিক্ষদের সঙ্গে আলোচনা করা জন্য। এ ঘটনার কী কারণ ছিল, কী বিষয় ছিল, সরেজমিনে তদন্ত করে দেখার জন্য এই পরিদর্শন। '

হত্যার আলামত তিন দিন পরে জব্দ করা ও মামলার আসামি জিতুর বয়স কম দেখানো সম্পর্কে পুলিশ সুপার বলেন, 'বয়সের ক্ষেত্রে প্রয়োজনে ডাক্তারি পরীক্ষা করা হবে। মামলায় কোনো ধীরগতি নেই। পুলিশের কার্যক্রম শুরু থেকেই চলছে। জিতুকে ধরতে আমাদের একাধিক টিম মানিকগঞ্জ, কুষ্টিয়াসহ বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করছে। জিতুর বাবাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। '

শনিবার (২৫ জুন) দুপুরে আশুলিয়ার চিত্রশাইল এলাকায় হাজী ইউনুস আলী স্কুল অ্যান্ড কলেজের মাঠে ওই শিক্ষকের ওপর অতর্কিত হামলার ঘটনা ঘটে। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার ভোরে শিক্ষক উৎপল কুমার সরকার মারা যান। রবিবার (২৬ জুন) আশুলিয়া থানায় নিহত শিক্ষকের ভাই বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন।

এখনো প্রধান আসামিকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। তবে জিতুর বাবা উজ্জ্বল হাজিকে মঙ্গলবার গভীর রাতে কুষ্টিয়ার কুমারখালী থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। পুলিশের আবেদনের প্রেক্ষিতে তার পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।



সাতদিনের সেরা