kalerkantho

শনিবার । ২০ আগস্ট ২০২২ । ৫ ভাদ্র ১৪২৯ । ২১ মহররম ১৪৪৪

ট্রাকে পদ্মা সেতু পার হচ্ছে মোটরসাইকেল

শিবচর (মাদারীপুর) প্রতিনিধি   

২৮ জুন, ২০২২ ২০:৫৭ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ট্রাকে পদ্মা সেতু পার হচ্ছে মোটরসাইকেল

আজ মঙ্গলবারও দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা থেকে অনেকেই মোটরসাইকেল নিয়ে পদ্মা সেতু পার হতে আসে। তবে জাজিরা টোল প্লাজা থেকে সবাইকে সরিয়ে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। মাঝিকান্দি ঘাটে একটি ফেরি চালু থাকায় বাধ্য হয়ে বাইকাররা ঝুঁকি নিয়ে ট্রলারে মটরসাইকেল পার করে। তবে কেউ কেউ টোল প্লাজা থেকে পাঁচ-সাত শ টাকা ভাড়া দিয়ে মোটরসাইকেল পিকআপে তুলে ত্রিপল দিয়ে ঢেকে পদ্মা সেতু পার করে।

বিজ্ঞাপন

জানা যায়, মঙ্গলবার সকাল থেকে পদ্মা সেতুর জাজিরা টোল প্লাজায় যানবাহনের চাপ শুরু হয়। তবে মোটরসাইকেল পারাপার বন্ধ ঘোষণায় টোল প্লাজা এলাকায় যানজট ছিল না। সকাল থেকেই টোল প্লাজা এলাকায় সেনাবাহিনী, পুলিশসহ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর বিপুলসংখ্যক সদস্য দায়িত্ব পালন করেন। এদিনও দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা থেকে মোটরসাইকেলে পদ্মা সেতু পার হতে আসে মানুষ। কিন্তু প্রশাসন তাদের জাজিরা টোল প্লাজা থেকেই ফিরিয়ে দেয়।  

এ সময় কেউ কেউ ৫০০ থেকে ৭০০ টাকা করে ভাড়া দিয়ে মোটরসাইকেল পিকআপ বা ট্রাকে উঠিয়ে ঢেকে পদ্মা সেতু পাড়ি দেয়। অধিকাংশ মোটরসাইকেল শরীয়তপুরের মাঝিকান্দি ঘাটে যায় ফেরিতে পারাপারের জন্য। কিন্তু এ রুটে মাত্র একটি ফেরি চালু থাকায় দুর্ভোগে পড়ে বাইকাররা। বাধ্য হয়ে ট্রলারে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মোটরসাইকেল নিয়ে পদ্মা পাড়ি দেয় তারা।

গত ২৫ জুন পদ্মা সেতুর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পরদিন সকালে গণপরিবহন পারাপারের জন্যে উন্মুক্ত করে দেওয়া হয় সেতু। কিন্তু কিছু বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের জন্য ওই দিনই ঘোষণা আসে পরদিন (সোমবার) থেকে সেতুতে মোটরসাইকেল নিষিদ্ধ করেছে সরকার।

খুলনা থেকে আসা সিহাব বলেন, 'পদ্মা সেতু চালু হলো, এতে আমরা খুবই খুশি। কিন্তু মোটরসাইকেল নিয়ে যদি না যেতে পারি তাহলে আমাদের দুর্ভোগ আর কাটল কই। বিষয়টি সরকারের দেখা উচিত। '

গৌরনদী থেকে আসা শফিকুল ইসলাম বলেন, 'পদ্মা সেতু দিয়ে ঢাকা যেতে চেয়েছিলাম; কিন্তু জাজিরা টোল প্লাজায় পুলিশ মোটরসাইকেল ফিরিয়ে দিয়েছে। তাই কোনো উপায় না পেয়ে ফেরিতে পার হতে মাঝিকান্দি ঘাটে এসেছিলাম। কিন্তু দীর্ঘ সময় অপেক্ষার পরও ফেরি না পেয়ে বাধ্য হয়ে ঝুঁকি নিয়ে ট্রলারে পদ্মা পাড়ি দিচ্ছি। '

ফরিদপুরের মনির হোসেন বলেন, 'কিছু অসাধু মানুষের জন্য আমাদের সবাইকে শাস্তি দেওয়া ঠিক না। আমরা চাই প্রশাসন কঠোর নজরদারির মধ্যে দিয়ে আমাদের মোটরসাইকেল নিয়ে পদ্মা সেতু পারাপারের যেন সুযোগ করে দেয়। '

শিবচর হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাখাওয়াত হোসেন বলেন, 'যে সকল যানবাহনের রুট পারমিটসহ সকল বৈধ কাগজপত্র রয়েছে আমরা তাদেরকে সেতু পারাপারের জন্য ছেড়ে দিচ্ছি। যে সকল গাড়ির রুট পারমিট নেই তাদের ফিরিয়ে দেওয়া হচ্ছে। বিশেষ করে মোটরসাইকেলের ক্ষেত্রে বিক্রির উদ্দেশ্যে শোরুমের গাড়ি অন্য কোনো পিকআপে বা ট্রাকে আনা হলে তাদেরকে যেতে দেওয়া হচ্ছে। কিন্তু চলাচলকারী কোনো মটরসাইকেলকে পদ্মা সেতু পারাপার হতে দেওয়া হচ্ছে না। '



সাতদিনের সেরা