kalerkantho

শুক্রবার । ১৯ আগস্ট ২০২২ । ৪ ভাদ্র ১৪২৯ । ২০ মহররম ১৪৪৪

কাঁঠাল খেয়ে শোকজের মুখে নোবিপ্রবির দুই ছাত্রী!

নোবিপ্রবি প্রতিনিধি    

২৮ জুন, ২০২২ ১৯:২০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কাঁঠাল খেয়ে শোকজের মুখে নোবিপ্রবির দুই ছাত্রী!

নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (নোবিপ্রবি) হযরত বিবি খাদিজা হলের অভ্যন্তরের কাঁঠালগাছ থেকে বিনা অনুমতিতে কাঁঠাল নেওয়ার ঘটনায় দুই শিক্ষার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছে হল কর্তৃপক্ষ। হলের প্রভোস্ট ড. গাজী মো. মহসিন ২৮ জুন (মঙ্গলবার) বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।  

 হল প্রভোস্ট স্বাক্ষরিত ওই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত ২১ জুন সকাল ১০টার দিকে হলের অভ্যন্তরের কাঁঠালগাছ থেকে বিনা অনুমতিতে কাঁঠাল ছিঁড়ে বস্তাবন্দি করে নিয়ে যায়। এর আগেও গাছ থেকে কাঁঠাল, কামরাঙ্গা, পেয়ারা হারিয়ে গেছে।

বিজ্ঞাপন

কিন্তু কাউকে চিহ্নিত করা সম্ভব হয়নি।  

বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, গাছে উঠে কাঁঠাল পাড়ার সময় গাছ থেকে পড়ে বড় ধরনের দুর্ঘটনা কিংবা জীবননাশেরও আশঙ্কা ছিল। এতে বিশ্ববিদ্যালয় কিংবা হল কর্তৃপক্ষ বড় ধরনের বিপদের সম্মুখীন হতে পারত। এ ঘটনার ব্যাখ্যা হল অফিসে লিখিতভাবে জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হলো।

এদিকে হল কর্তৃপক্ষের এমন নোটিশে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা। বিশ্ববিদ্যালয়ের সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী শাহরিয়ার আহমেদ সিয়াম বলেন, ক্যাম্পাসে কোথাও তেমন কোনো ফলের গাছ নেই। যে দু-একটা আছে সেটার ফল কি বাজারে বিক্রি করার জন্য?

ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি আরো বলেন, 'কেন্দ্রীয় খেলার মাঠ, ময়নাদ্বীপ লিজ দেওয়া টাকা দিয়ে হয় না আপনাদের? এখন গাছের ফল বিক্রি করতে হবে? শিক্ষার্থীদের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়। সাধারণ শিক্ষার্থীরা খাবে না তো কি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা খাবে? কাঁঠাল পাড়ায় এমন নোটিশ কোনোভাবেই দেওয়া উচিত হয়নি। আসলেই নোবিপ্রবি এক আশ্চর্যের নাম। '

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিবি খাদিজা হলের প্রভোস্ট ড. গাজী মো. মহসিন বলেন, 'শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার কথা আমাদের চিন্তা করতে হয়। কোনো দুর্ঘটনা ঘটলে এর জবাব আমাদের দিতে হয়। আমরা প্রচলিত আইন অনুযায়ী কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছি। '



সাতদিনের সেরা