kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১১ আগস্ট ২০২২ । ২৭ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১২ মহররম ১৪৪৪

বরিশালের বানারীপাড়া

স্কুলে ঝুঁকিপূর্ণ ক্লাস, ছাদ-দেয়াল ভেঙে ভয়াবহ দুর্ঘটনার শঙ্কা

বানারীপাড়া (বরিশাল) প্রতিনিধি    

২৮ জুন, ২০২২ ১০:২২ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



স্কুলে ঝুঁকিপূর্ণ ক্লাস, ছাদ-দেয়াল ভেঙে ভয়াবহ দুর্ঘটনার শঙ্কা

বরিশালের বানারীপাড়ায় সৈয়দকাঠি ইউনিয়নের করপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ঝুঁকি নিয়ে পাঠদান চলছে। পুরো ভবনের ছাদ ও দেয়ালে দেখা দিয়েছে অসংখ্য ফাটল। খসে খসে পড়ছে ছাদ ও দেয়ালের পলেস্তারা। ঝুঁকিপূর্ণ ভবনেই পাঠদান করতে হচ্ছে ওই এলাকার শিশুশিক্ষার্থীদের।

বিজ্ঞাপন

সম্প্রতি বিদ্যালয়ের সামনে খাল সংলগ্ন ছোট্ট খেলার মাঠে দুই কক্ষ বিশিষ্ট দুটো টিন-কাঠের ক্লাসরুম তৈরি করা হয়েছে। তবে তাতে স্থান সংকুলান না হওয়ায় ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে শিক্ষার্থীদের ক্লাস নেওয়া হচ্ছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, একতলা ভবনের ৪ কক্ষ বিশিষ্ট প্রতিটি ক্লাস রুমের ছাদ, ছাদের বিম ও দেয়ালে অসংখ্য ফাটল। সেখানে মরচে ধরা রড বের হয়ে গেছে। পলেস্তারা খসে খসে পড়ছে। চলতি বর্ষা মৌসুমে অন্তহীন দুর্ভোগে পড়েছেন শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা। একপশলা বৃষ্টি হলেই ছাদ চুইয়ে বৃষ্টির পানি কক্ষের ভেতরে পড়ে। বেহাল হয়ে পড়া ভবনের ছাদ ও দেয়াল ভেঙে যেকোনো সময় ঘটতে পারে প্রাণহানিসহ ভয়াবহ দুর্ঘটনা। এদিকে, সন্ধ্যা নদীর বৃহৎ শাখা খালের পাড়ে প্রতিষ্ঠিত এ বিদ্যালয়ে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের খেলাধুলার জন্য নেই কোনো বড় মাঠ। জোয়ারের পানিতে অনেক সময় বিদ্যালয়ের মাঠ পানিতে টইটুম্বুর হয়ে যায়। এছাড়া একজন শিক্ষক বদলি হয়ে যাওয়ায় ৪ জন শিক্ষক দিয়েই পাঠদান করানো হচ্ছে। এতে শিক্ষার্থীদের লেখাপড়া চরমভাবে ব্যাহত হচ্ছে।  

এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের প্রধানশিক্ষক (চলতি দায়িত্ব) শহীদুল ইসলাম জানান, উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার কাছে নতুন ভবনের জন্য আবেদন করেও কোনো সুরাহা হয়নি। এ অবস্থায় আমাদের কোমলমতি শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে শঙ্কায় আছি।

এ বিষয়ে বরিশাল জেলা ও বানারীপাড়া উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক জাহিদ হোসেন জানান, বিষয়টি আমার নজরে আছে। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ও সংশ্লিষ্ট ইঞ্জিনিয়ারের সঙ্গে কথা বলবো।  

এ প্রসঙ্গে বানারীপাড়া উপজেলা শিক্ষা কমিটির সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব গোলাম ফারুক বলেন, বিদ্যালয়ের ভবন সংস্কার কিংবা নতুন ভবন নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হবে।

প্রসঙ্গত, করপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা বানারীপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি প্রয়াত ওসমান গণি হাওলাদার। বিদ্যালয়টি স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) তত্ত্বাবধানে ১৯৯৭-১৯৯৮ অর্থবছরে ৫ লক্ষ ৭৫ হাজার ৫০০ টাকা প্রাক্কলিত ব্যয়ে নির্মিত হয়। ২০০০ সালে এটি পুনর্নির্মাণ করা হয়। কিন্তু ভবন নির্মাণ ও পুনর্নির্মাণের সময় নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার করায় জরাজীর্ণ অবস্থায় রূপ নিয়েছে। শিক্ষক ও অভিভাবকসহ এলাকাবাসী দুর্ঘটনা এড়াতে ও শিশুদের নির্বিঘ্নে পাঠদান নিশ্চিত করতে দ্রুত সংস্কার কিংবা নতুন বহুতল ভবন নির্মাণের দাবি জানিয়েছেন।   



সাতদিনের সেরা