kalerkantho

শুক্রবার । ১৯ আগস্ট ২০২২ । ৪ ভাদ্র ১৪২৯ । ২০ মহররম ১৪৪৪

চোর ধরলেন ইজি বাইক চালক, ছেড়ে দিলেন মেম্বার!

পুলিশ গিয়ে হতাশ

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, ময়মনসিংহ   

২৭ জুন, ২০২২ ১৭:১৯ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



চোর ধরলেন ইজি বাইক চালক, ছেড়ে দিলেন মেম্বার!

স্বামী-স্ত্রী সেজে ইজি বাইকে যাত্রীবেশে উঠে ফাঁদে ফেলে ছিনতাইয়ের চেষ্টা করা হয়। ঘটনা বুঝতে পেরে চালক স্থানীয় জনতার সহায়তায় হাতেনাতে তাদের ধরে পুলিশে খবর দেন। পরে পুলিশ আসার আগেই প্রভাব খাটিয়ে চোরদলকে ছেড়ে দেন মেম্বার। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলেও হতাশ হয়ে ফিরে আসে।

বিজ্ঞাপন

এ ঘটনায় এলাকায় চলছে আলোচনা-সমালোচনা। আজ সোমবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে ময়মনসিংহের নান্দাইল চৌরাস্তা এলাকায়।

খবর পেয়ে দুপুর ১টার দিকে নান্দাইল চৌরাস্তায় গিয়ে দেখা যায়, শ্রমিক সংগঠনের কার্যালয়ের চেয়ারে বসে রয়েছেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা ও ইউপি সদস্য মো. রতন ভূঁইয়া। কার্যালয়ে ভেতরে পুলিশ সদস্য ও বাইরে প্রচুর লোকজনের ভিড় দেখা যায়। জানা যায়, দুপুর সাড়ে ১২টার সময় নান্দাইল উপজেলার কানুরামপুর কতুবপুর এলাকার গিয়াস উদ্দিন নামের এক ইজি বাইক চালক যাত্রী নিয়ে ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ মহাসড়কের চৌরাস্তা এলাকায় আসেন। এ সময় এক নারী যাত্রী চালককে সাথে নিয়ে কিছু দূরে যায় একটা কিছু আনতে।  

গিয়াস উদ্দিন জানান, কিছুদূর যাওয়ার পর বিষয়টি নিয়ে সন্দেহ হলে তিনি ওই নারীকে রেখেই নিজের ইজি বাইকের কাছে আসেন। পরে দেখতে পান ইজি বাইকে থাকা পুরুষ যাত্রী নিজেই চালিয়ে ইজি বাইকটি নিয়ে যাচ্ছে। এ অবস্থায় চিৎকার দিলে স্থানীয় জনতা ওই নারী ও পুরুষকে ধরে থানায় খবর দেয়।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যান নান্দাইল মডেল থানার (উপপরিদর্শক) সবুর উদ্দিন। তিনি জানান, তিনি পুলিশ নিয়ে চৌরাস্তা এসে চোরদের পাননি। স্থানীয় ইউপি সদস্য রতন ভূঁইয়া তাদের ছেড়ে দিয়েছেন।  

অপরাধীদের পুলিশের কাছে তুলে না দিয়ে ছেড়ে দেওয়ার কারণ জানতে চাইলে রতন ভূঁইয়া বলেন, 'হাজার হাজার জনতার হাত থেকে রক্ষা করতেই বাধ্য হয়ে ছেড়ে দিয়েছি। ' 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেকেই জানান, কয়েক দিন পরপরই নারী-পুরুষ মিলে কৌশলে ইজি বাইক ছিনতাই করে নিয়ে যাচ্ছে। এতে অতিষ্ঠ ছিলেন চালকরা। গতকাল চোর ধরার পর তারা স্বস্তি পাচ্ছিলেন। এই মুহূর্তে অজ্ঞাত কারণে রতন ভূঁইয়া চোরদের ছেড়ে দিয়েছেন। এ ঘটনার পর রতন ভূঁইয়ার ভয়ে কেউ প্রতিবাদ করেনি। কারণ ওই নেতার লোকজন চৌরাস্তা এলাকার ইজি বাইক থেকে চাঁদা আদায় করে থাকে। স্থানীয় একটি সূত্রে জানা যায়, ইউপি নির্বাচনে সদস্য পদে নির্বাচিত হওয়ার পর রতন ভূঁইয়াকে জুয়ার আসর থেকে ডিবি পুলিশ আটক করেছিল। অজ্ঞাত কারণে পরে তিনি ছাড়া পেয়েছিলেন।

এ ঘটনায় ওসি মিজানুর রহমান জানান, জনতা চোর ধরে থানায় খবর দেয়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলেও চোর পায়নি। রতন ভূঁইয়া নামের একজন নাকি ছেড়ে দিয়েছে। এটা অন্যায় করেছে। এ বিষয়ে খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে।



সাতদিনের সেরা