kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১১ আগস্ট ২০২২ । ২৭ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১২ মহররম ১৪৪৪

ময়মনসিংহে বাজুসের নতুন সদস্য বরণ

'তাঁর যোগ্য নেতৃত্বে জুয়েলারি ব্যবসায় নতুন দিগন্ত উন্মোচন হয়েছে'

নিজস্ব প্রতিবেদক, ময়মনসিংহ   

২৭ মে, ২০২২ ২০:০৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



'তাঁর যোগ্য নেতৃত্বে জুয়েলারি ব্যবসায় নতুন দিগন্ত উন্মোচন হয়েছে'

'বাজুস সভাপতি সায়েম সোবহান আনভীরের নেতৃত্বে বাংলাদেশে জুয়েলারি ব্যবসায় নতুন দিগন্ত উন্মোচন হয়েছে। সভাপতির ইচ্ছা সকল জুয়েলারি ব্যবসায়ীকে বাজুসের ছাতার নিচে নিয়ে আসা। সকলকে ঐক্যবদ্ধ করা। তাহলে সবাই মিলে আমাদের ব্যবসাকে সম্মানের স্থানে নিয়ে যেতে পারব।

বিজ্ঞাপন

'

শুক্রবার বিকেলে ময়মনসিংহে নগরীর হোটেল হেরাতে বাজুসের (বাংলাদেশ জুয়েলার্স অ্যাসোসিয়েশন) নতুন সদস্যদের বরণ অনুষ্ঠানে বক্তারা এ কথাগুলো বলেন। বর্ণাঢ্য এ আয়োজনে ময়মনসিংহ জেলা সদরসহ বিভিন্ন উপজেলার জুয়েলারি ব্যবসায়ীরা উপস্থিত ছিলেন। ঢাকা থেকে উপস্থিত ছিলেন বাজুসের কেন্দ্রীয় নেতারা।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাজুস ময়মনসিংহ জেলা শাখার সভাপতি আলহাজ মালিক মো. হোসেন। প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন এম এ ওয়াদুদ খান (সাবেক সভাপতি ও চেয়ারম্যান, বাজুস স্ট্যান্ডিং কমিটি অন ল অ্যান্ড মেম্বারশিপ), বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মাসুদুর রহমান (সহ-সম্পাদক ও ভাইস চেয়ারম্যান, বাজুস স্ট্যান্ডিং কমিটি অন ল অ্যান্ড মেম্বারশিপ), মো. রিপনুল হাসান (কার্যনির্বাহী সদস্য ও সদস্যসচিব, বাজুস স্ট্যান্ডিং কমিটি অন ল অ্যান্ড মেম্বারশিপ)। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন বাজুস ময়মনসিংহের সাধারণ সম্পাদক চন্দন কুমার ঘোষ। এ ছাড়া বক্তব্য দেন বাজুস ময়মনসিংহের সহসভাপতি এম এ কবীর।

অনুষ্ঠানের শুরুতে ঢাকার অতিথিদের হাতে শুভেচ্ছা স্মারক তুলে দেওয়া হয়। এ সময় সায়েম সোবহান আনভীরের পক্ষে শুভেচ্ছা স্মারক গ্রহণ করেন বাজুস উপদেষ্টা ও বাংলাদেশ প্রতিদিনের বিজনেস এডিটর রুহুল আমীন রাসেল।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে এম এ ওয়াদুদ খান বলেন, 'জুয়েলারি ব্যবসার সমস্যা-সংকটগুলো ধীরে ধীরে দূর হবে। আমাদের ব্যবসার সমন্বয়হীনতা দূর হবে। ' তিনি বলেন, 'বর্তমান সভাপতি সায়েম সোবহান আনভীর একজন আলোকিত মানুষ। তিনি কাজ পছন্দ করেন। জুয়েলারি ব্যবসার নেতিবাচক ধারণাকে তিনি ইতিবাচক ধারণায় রূপ দিতে চান। ' প্রধান অতিথি আরো বলেন, 'স্বর্ণ বাংলাদেশের সম্পদ। এ ব্যবসায় জড়িত থেকে আমরা গর্বিত। ' তিনি সবাইকে দ্রুত বাজুসের সদস্য হওয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, 'ভবিষ্যতে সদস্য হওয়া কঠিন হয়ে পড়বে। বাজুস সব সময় তার সদস্যদের পাশে থাকবে। '

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মাসুদুর রহমান বলেন, 'আজ একটি আনন্দের দিন। নতুন সদস্যদের বরণ করে নেওয়া হচ্ছে। জুয়েলারি ব্যবসায়ী ভাইয়েরা আজ এক হচ্ছেন। এ ব্যবসা একটা সম্মানের ব্যবসায় রূপ নিচ্ছে। এ সবই সম্ভব হচ্ছে বর্তমান সভাপতি সায়েম সোবহান আনভীরের যোগ্য নেতৃত্বের কারণে। ' ব্যবসায়ীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, 'সামনের দিনগুলোতে আপনারা অনেক সুখবর পাবেন। '

আরেক বিশেষ অতিথি মো. রিপনুল হাসান বলেন, 'সভাপতির প্রতাশা সকল জুয়েলারি ব্যবসায়ীকে এক ছাতার নিচে নিয়ে আসা। তাই আমাদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। সভাপতির হাতকে শক্তিশালী করতে হবে। এতে আমরাই শক্তিশালী হব। ' তিনি বলেন, 'ভবিষ্যতে সকল বাজুস সদস্য একটি সনদ পাবেন। যা দ্বারা সম্মান ও সহজে ব্যবসা করা যাবে। '

বাজুস ময়মনসিংহের সহসভাপতি এম এ কবীর বলেন, 'বর্তমান সভাপতির নেতৃত্বে বাজুস ভবিষ্যতে আরো শক্তিশালী হবে। সভাপতির নির্দেশনায় বাজুস আরো এগিয়ে যাবে। '

স্বাগত বক্তব্যে বাজুস ময়মনসিংহের সাধারণ সম্পাদক চন্দন কুমার ঘোষ বলেন, 'ময়মনসিংহের জুয়েলারি ব্যবসায়ীদের জন্য আজ এক মহা আনন্দের দিন। সম্মানিত ও সুযোগ্য বাজুস সভাপতি সায়েম সোবহান আনভীরের সার্বিক দিকনির্দেশনায় আজ তারা একত্রিত হতে পেরেছেন। নতুন সদস্য সংগ্রহে এ জেলা প্রথম স্থান অর্জন করেছে। '

তিনি বাজুসের সদস্য সংগ্রহের জন্য সময় বাড়ানোর আবেদন করেন।



সাতদিনের সেরা