kalerkantho

শনিবার । ২ জুলাই ২০২২ । ১৮ আষাঢ় ১৪২৯ । ২ জিলহজ ১৪৪৩

কলার কেজি ৫০! ক্রেতা-বিক্রেতা উভয়ের ‘লাভ’

হিলি প্রতিনিধি   

২৫ মে, ২০২২ ১৬:৪২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কলার কেজি ৫০! ক্রেতা-বিক্রেতা উভয়ের ‘লাভ’

ছবি : কালের কণ্ঠ

‘কলার হালি ৩০ টাকা, ডজন নিলে ১০০’ কলা বিক্রেতাদের এমন ডাক প্রতিদিনই শোনা যায় দিনাজপুরের হিলি বন্দর বাজারে। কিন্ত আজ মঙ্গলবার ভিন্ন ডাকে ক্রেতাদের আকৃষ্ট করছেন কলা বিক্রেতা পারভেজ মিয়া। তার হাঁক ডাকে জড়ো হচ্ছেন ক্রেতারা। পারভেজের অফারে আকৃষ্ট হয়ে কলাও কিনছেন তারা।

বিজ্ঞাপন

পারভেজ মিয়া কেজি দরে কলা বিক্রি করছেন। কেজি ৫০ টাকা। যা এই বাজারে নতুন। এক কেজি কলাতে ৮-১০টি কলা পাচ্ছে ক্রেতারা। হিলি স্থলবন্দর এলাকার চারমাথা মোড়ে মসজিদের পাশে ভ্যানে করে অনুপম কলা বিক্রি করতে দেখা গেছে পারভেজ মিয়াকে।

হিলি স্থলবন্দরের বাজার ঘুরে দেখা গেছে, বড় আকারের অনুপম কলা এক হালি ৩০ থেকে ৩৫ টাকা বিক্রি করতে দেখা গেছে। আর মালভোগ ও শফরি এক হালি ২৫ থেকে ৩০ টাকা দরে বিক্রি করছেন ব্যবসায়ীরা। এ ছাড়া ছোট আকারের চিনিচাপা কলা বিক্রি হচ্ছে ১০ থেকে ১৫ টাকা হালিতে।

কেজি দরে কলার ক্রেতা শরিফুল ইসলাম বলেন, ‘বাজারে অনেক ফল কেজিতে বিক্রি করতে দেখেছি। কিন্তু নতুন এই পদ্ধতিতে কলা বিক্রি আজ প্রথম দেখলাম। কলাগুলো ভালো, তাই পরিবারের জন্য কিনে নিয়েছি। ’

শরিফুল জানান, তিনি এক কেজি ৭০০ গ্রাম কলা কিনেছেন পারভেজ মিয়ার ভ্যান থেকে। এতে ১৪টি কলা পেয়েছেন। কেজি দরে মূল্য দিতে হয়েছে ৮০ টাকা। বাজারে হালি বা ডজন হিসেবে ১৪টি অনুপম কলা কিনতে গেলে তাকে ১২০ থেকে ১৩০ টাকা ব্যয় করতে হতো বলে জানান শরিফুল।

ব্যবসায়ী পারভেজ মিয়া বলেন, আমি দীর্ঘদিন ধরে হিলিতে কলার ব্যবসা করছি। এই অনুপম কলাগুলো সাতক্ষীরা থেকে নিয়ে এসেছি। হালি হিসেবে ৩৫ থেকে ৪০ টাকা দরে বিক্রি করতে পারতাম। কিন্তু কেজিতে কলা বিক্রি করায় আমার বিক্রি বেশি হচ্ছে। আমার বেশি লাভের দরকার নাই কেজিতে ৭-৮ টাকা লাভ হলেই চলবে। কেজিতে বিক্রি করায় অনেকেই শখ করে কলা নিচ্ছে।  



সাতদিনের সেরা