kalerkantho

বুধবার । ২৯ জুন ২০২২ । ১৫ আষাঢ় ১৪২৯ । ২৮ জিলকদ ১৪৪৩

যৌন হয়রানির অভিযোগ দুই মাদরাসা শিক্ষার্থীর, ব্যবস্থা নেয়নি প্রতিষ্ঠান

এক মাস অতিবাহিত হলেছে, অভিযুক্তকে কেবল শোকজ করা হয়েছে

ভোলা প্রতিনিধি    

২৪ মে, ২০২২ ১২:২৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



যৌন হয়রানির অভিযোগ দুই মাদরাসা শিক্ষার্থীর, ব্যবস্থা নেয়নি প্রতিষ্ঠান

ভোলার লালমোহন উপজেলার লালমোহন ইসলামিয়া কামিল মাদরাসার শিক্ষক মো. মাকসুদ আলমের বিরুদ্ধে ওই প্রতিষ্ঠানের দুই ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগ উঠেছে। গত ২৪ এপ্রিল মাকসুদ আলমের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ তুলে মাদরাসার অধ্যক্ষের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন দশম শ্রেণির দুই ছাত্রী। ভুক্তভোগী ওই শিক্ষার্থীদের অভিযোগের এক মাস অতিবাহিত হলেও অধ্যক্ষ এ ঘটনায় শোকজ করা ছাড়া আর কোনো ব্যবস্থা নেননি বলে জানা যায়।  

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, শিক্ষক মাকসুদ আলম ওই মাদরাসার পেছনে একটি ভাড়া বাসায় শিক্ষার্থীদের প্রাইভেট পড়াতেন।

বিজ্ঞাপন

তিনি বিভিন্ন সময় নানা কৌশলে ছাত্রীদের আপত্তিকরভাবে স্পর্শ করার চেষ্টা করতেন। গত ২৪ এপ্রিল শিক্ষক মাকসুদ আলম ভুক্তভোগীদের মধ্যে এক ছাত্রীকে অশ্লীল ভঙ্গিতে কথাবার্তা বলতে থাকেন। ওই শিক্ষার্থীকে অনেক ভালো লাগে বলে জানান। একপর্যায়ে ছাত্রীকে জোরপূর্বক যৌন হয়রানি করেন। এসময় শিক্ষার্থীর চিৎকারে শিক্ষক মাকসুদ আলম তাকে ছেড়ে দেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ছাত্রীদেরকে যৌন হয়ারনির অভিযোগ অস্বীকার করেন তিনি। এছাড়াও এ সংবাদ প্রকাশ না করার অনুরোধও করেন মাকসুদ আলম।

মাদরাসার অধ্যক্ষ মাওলানা মো. মোশাররফ হোসেন বলেন, শিক্ষক মাকসুদ এটি অপরাধ করেছেন। আমরা তাকে এজন্য শোকজ করেছি। তার বিরুদ্ধে আরও শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এ ব্যাপারে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, এ ঘটনা শোনার পর মাদরাসার অধ্যক্ষকে বিষয়টি তদন্ত করে অভিযোগের সত্যতা পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করে শিক্ষা অফিসে জানানোর নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।



সাতদিনের সেরা