kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৮ জুন ২০২২ । ১৪ আষাঢ় ১৪২৯ । ২৭ জিলকদ ১৪৪৩

সাতক্ষীরায় সাংবাদিক লাঞ্ছিত, প্রতিবাদে মানববন্ধন

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি   

২৩ মে, ২০২২ ০০:৩৮ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



সাতক্ষীরায় সাংবাদিক লাঞ্ছিত, প্রতিবাদে মানববন্ধন

ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার সঙ্গে সাতক্ষীরা পানি উন্নয়ন বোর্ড-১ এর নির্বাহী প্রকৌশলীর সভা চলাকালে নিষেধ উপেক্ষা করে কক্ষে ঢুকে ফেসবুক লাইভে গালিগালাজ করার অভিযোগে অনিবন্ধিত অনলাইন পোর্টাল ‘সমাজের আলো’র সাংবাদিক ইয়ারব হোসেন লাঞ্ছিত হয়েছেন। রবিবার (২২ মে) সকাল সাড়ে ১১টার দিকে সাতক্ষীরা শহরের ইটাগাছা এলাকার পানি উন্নয়ন বোর্ডের কার্যালয় চত্বরে এ ঘটনা ঘটে।

এদিকে সাংবাদিক ইয়ারব হোসেনকে লাঞ্ছিত করার প্রতিবাদে সাতক্ষীরা প্রেস ক্লাবের একাংশের সাংবাদিকরা রবিবার দুপুরে পানি উন্নয়ন বোর্ডের সামনে মানববন্ধন করেছে।

সাংবাদিক ইয়ারব হোসেন জানান, কলারোয়া থেকে সাতক্ষীরা পর্যন্ত বেতনা নদী খনন নিয়ে কিছু তথ্য সংগ্রহের জন্য তিনি রবিবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে পানি উন্নয়ন বোর্ডের সাতক্ষীরার প্রধান নির্বাহী আবুল খায়েরের কার্যালয়ে যান।

বিজ্ঞাপন

তিনি ওই কর্মকর্তার কক্ষের সামনে বসে থাকার কয়েক মিনিটের মধ্যেই বারান্দার পাশে দাঁড়িয়ে থাকা নিরাপত্তা রক্ষীকে লাঠি নিয়ে আসার জন্য ইশারা করেন ওই কর্মকর্তা। এর পরই কয়েকজন নিরাপত্তা কর্মী ও এক কর্মকর্তা তার ওপর হামলা চালায়। পরে অন্যান্য কর্মচারীরাও তাকে লাঠি দিয়ে মারধরসহ কিল, চড় ও ঘুষি মেরে তাকে আহত করেন। কেড়ে নেওয়া হয় তার মোবাইল ফোন।

তবে পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মচারী মানবেন্দ্র মণ্ডল, আব্দুল হাকিম, জমি বন্দোবস্ত নিতে আসা কালিগঞ্জের কুমারখালি গ্রামের তপন গাইন, সদরের মাধবকটি গ্রামের তকদির হোসেনসহ কয়েকজন জানান, এক সাংবাদিক রবিবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে ফেসবুক লাইভ দিতে দিতে নির্বাহী প্রকৌশলী-১ আবুল খায়েরের অফিসের সামনে আসেন।

তিনি নির্বাহী প্রকৌশলীর সঙ্গে কথা বলার ইচ্ছা প্রকাশ করলে অফিস পিওন বিষয়টি ভেতরে গিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাকে অবহিত করেন। ওই কর্মকর্তা ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার সঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ আলাপ করছেন জানিয়ে সাংবাদিককে কিছুক্ষণ বসতে বলেন। ওই সাংবাদিক কথা না শুনে লাইভ দিতে দিতে ভেতরে ঢুকে প্রধান নির্বাহী আবুল খায়েরকে নদী খননের ৪৭৫ কোটি টাকার লুটপাটকারীসহ বিভিন্ন আপত্তিকর কথা তুলে ধরেন। এতে মতবিনিময়ে অংশ নেওয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের একজন বড় মাপের কর্মকর্তা ও প্রধান নির্বাহী হতবাক হয়ে যান। একপর্যায়ে তাকে বাইরে যেতে বলেন, ওই সাংবাদিক বেরিয়ে আসার কিছুক্ষণ পর প্রধান নির্বাহী তার কাছে পরিচয় জানতে চান। কথা বলার একপর্যায়ে তিনি তুজুলপুরের অনিবন্ধিত অনলাইন সমাজের আলোর সম্পাদক বলে জানান। অনিবন্ধিত অনলাইনে তিনি কোনো সাক্ষাৎকার দেবেন না বলায় ওই সাংবাদিক প্রধান নির্বাহীর ওপর তেড়ে যান। তাকে দেখে নেওয়ার হুমকি দেন। এতে ওই সাংবাদিক আরো ক্ষুব্ধ হলে নিরাপত্তারক্ষীরা তাকে চলে যেতে বলেন।

এ ব্যাপারে পানি উন্নয়ন বোর্ড সাতক্ষীরা-১ এর নির্বাহী প্রকৌশলী আবুল খায়ের জানান, বেড়িবাঁধ নির্মাণ নিয়ে ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তার সঙ্গে মতবিনিময়কালে সাংবাদিক ইয়ারব হোসেন তার সঙ্গে কথা বলতে চান জেনে তাকে কিছুক্ষণ অপেক্ষা করতে বলেন। তিনি তা না শুনে জোরপূর্বক কক্ষে ঢুকে আপত্তিকর কথা ফেসবুক লাইভে বলতে থাকেন। তাকে বাইরে চলে যেতে বলার পর তিনি বারান্দায় অপেক্ষামান নিরাপত্তাকর্মীদের সঙ্গে বিতর্কে জড়িয়ে পড়েন। পরে তাকে সরিয়ে দিয়ে বাইরে চলে যেতে বলা হয়।

এদিকে সাংবাদিক ইয়ারব হোসেনকে মারধর করা হয়েছে প্রেস ক্লাবে এমন খবর ছড়িয়ে পড়ায় দুপুর ১টার দিকে সাতক্ষীরা পানি উন্নয়ন বোর্ডের সামনে এক মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে প্রেস ক্লাবে কর্মরত সাংবাদিকদের একাংশ। তারা ইয়ারব হোসেনের ওপর হামলার নির্দেশদাতা  নির্বাহী প্রকৌশলী আবুল খায়েরকে তিন দিনের মধ্যে অপসারণের দাবি জানান। অন্যথায় বৃহত্তর কর্মসূচি গ্রহণ করা হবে বলে ঘোষণা দেন।



সাতদিনের সেরা