kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৮ জুন ২০২২ । ১৪ আষাঢ় ১৪২৯ । ২৭ জিলকদ ১৪৪৩

পুরো পরিবারকে অচেতন করে বন্ধুস্ত্রীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ!

রংপুর অফিস   

২২ মে, ২০২২ ২০:১৪ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পুরো পরিবারকে অচেতন করে বন্ধুস্ত্রীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ!

রংপুরের বদরগঞ্জে স্বামীকে বেঁধে মুখে টেপ লাগিয়ে অচেতন স্ত্রীকে ধর্ষণ করেছে তাঁর বন্ধুরা। পরিবারের সদস্যদের অচেতন করার পর বন্ধুর স্ত্রীকে ধর্ষণ করে তারা―এমনই অভিযোগ ভুক্তভোগী ওই পরিবারের। এ ঘটনায় প্রধান আসামি মিলন হোসেন ও মোস্তাকিন নামের দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

ভুক্তভোগী পরিবার ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ধর্ষণের শিকার গৃহবধূর স্বামী আর অভিযুক্ত তিনজন বন্ধু।

বিজ্ঞাপন

বন্ধুর বাড়িতে এসে তাঁর পা-হাত বেঁধে মুখে টেপ লাগিয়ে তাঁরই অচেতন স্ত্রীকে ধর্ষণ করে বন্ধুরা।

ঘটনাটি ঘটে ২০ মে। ওই দিন বন্ধুর বাড়ি এসে চার বন্ধু মিলে একসঙ্গে বেড়াতে যায়। রাতে ওই গৃহবধূর শাশুড়ি তাদের রান্না করে খাওয়ান। কৌশলে ওই গৃহবধূ, তাঁর শ্বশুর-শাশুড়ি আর স্বামীর খাবারে চেতনানাশক মিশিয়ে দেয় ওই তিন বন্ধু। এরপর ওষুধের ক্রিয়ায় ঘুমিয়ে পড়েন সবাই।

রাত ১টা থেকে দেড়টার দিকে ওই গৃহবধূর কক্ষে প্রবেশ করে তাঁর স্বামীর তিন বন্ধু। এ সময় তারা বন্ধুর হাত-পা রশি দিয়ে বেঁধে মুখে টেপ লাগিয়ে তার অচেতন স্ত্রীকে ধর্ষণ করে। একপর্যায়ে জ্ঞান ফিরে এলে ওই গৃহবধূ চিৎকার শুরু করেন। চিৎকার শুনে প্রতিবেশী ও পরিবারের লোকজন ছুটে এলে অভিযুক্তরা পালিয়ে যায়।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, গত শনিবার (২১ মে) সকালে ভুক্তভোগী ওই গৃহবধূসহ তাঁর স্বামী ও শ্বশুর-শাশুড়িকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। পরে ধর্ষণের শিকার গৃহবধূকে দিনাজপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায় পরিবারের সদস্যরা। এ ঘটনায় ওই গৃহবধূর স্বামী বাদী হয়ে থানায় একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন তিন বন্ধুর বিরুদ্ধে।

রংপুরের বদরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাবিবুর রহমান বলেন, ধর্ষণের ঘটনায় প্রধান আসামি মিলন হোসেন ও মোস্তাকিনকে ওই এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকি আসামিকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।



সাতদিনের সেরা