kalerkantho

রবিবার । ২৬ জুন ২০২২ । ১২ আষাঢ় ১৪২৯ । ২৫ জিলকদ ১৪৪৩

আদালতে ধর্ষণের কথা স্বীকার, রক্তক্ষরণে শিশু হাসপাতালে

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি   

১৮ মে, ২০২২ ১৮:১৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আদালতে ধর্ষণের কথা স্বীকার, রক্তক্ষরণে শিশু হাসপাতালে

হবিগঞ্জ সদর উপজেলায় আম দেওয়ার কথা বলে ৯ বছরের এক শিশুকে ধর্ষণ করা হয়েছে। অসুস্থ অবস্থায় শিশুটিকে হবিগঞ্জ ২৫০ শয্যা আধুনিক জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। মঙ্গলবার সকালে এ ঘটনা ঘটে। পরে রাতে পুলিশ মঙ্গলবার রাতেই অভিযুক্ত আব্দাল মিয়াকে (২২) গ্রেপ্তার করেছে।

বিজ্ঞাপন

আজ বুধবার বিকেলে আব্দাল মিয়া সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সুলতান উদ্দিন প্রধানের আদালতে স্বীকারোক্তি দিয়েছেন। এ সময় তিনি ধর্ষণের কথা স্বীকার করেন।

শিশুটির বাবা জানান, মঙ্গলবার সকালে ঘুম থেকে ওঠে শিশুটি ঘরের বাহিরে আসলে আব্দাল মিয়া আম দেওয়ার কথা বলে পাশের গ্রামে নিয়ে যায়। সেখানে শিশুটিকে ধর্ষণ করে আব্দাল। এ সময় ইয়াছিরসহ আরো দুজন ধর্ষণে সহযোগিতা করে। এ সময় শফিক মিয়ার পরিবারের সবাই ঘুমে ছিলেন। ধর্ষণের পর শিশুটি অসুস্থ হয়ে গেলে তারা তাকে ছেড়ে দেয়। পরে বাড়িতে ফিরে সে পরিবারের সদস্যদের কাছে ঘটনা জানায়। দুপুরের দিকে শিশুটির রক্তক্ষরণ শুরু হলে পরিবারের লোকজন তাকে হবিগঞ্জ ২৫০ শয্যা আধুনিক জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

হবিগঞ্জ জেলা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ডা. ইছতিয়াক রেজা বলেন, ‘আমাদের গাইনি বিশেষজ্ঞরা শিশুটির পরীক্ষা করছেন। পরিক্ষার পরই আসলে ধর্ষণ হয়েছে কি-না সেটি বলা যাবে। ’

হবিগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম মর্তুজা বলেন, ‘ঘটনার খবর পেয়ে আমরা শিশুটিকে হাসপাতালে দেখে এসছি। এ ছাড়াও ধর্ষণকারীকে গ্রেপ্তারের পর সে পুলিশের কাছে ঘটনার দায় স্বীকার করলে বুধবার বিকেলে তাকে আদালতে প্রেরণ করা হলে বিজ্ঞ বিচারকের কাছেও সে দায় স্বীকার করে। ’
 
এ ব্যাপারে ভিকটিমের বাবা বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছেন বলেও জানান ওসি।



সাতদিনের সেরা