kalerkantho

মঙ্গলবার ।  ১৭ মে ২০২২ । ৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৫ শাওয়াল ১৪৪৩  

ভাতা না পাওয়ায় ঈদ আনন্দ অনিশ্চিত ১৯ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারে!

আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি   

২৮ এপ্রিল, ২০২২ ২১:৩২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ভাতা না পাওয়ায় ঈদ আনন্দ অনিশ্চিত ১৯ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারে!

সম্মানী ও উৎসব ভাতা না পাওয়ায় ঈদ আনন্দ থেকে বঞ্চিত বরগুনার আমতলী উপজেলার ১৯ বীর মুক্তিযোদ্ধা পরিবার। দ্রুত তাদের সম্মানী ও উৎসব ভাতা দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন ভুক্তভোগী মুক্তিযোদ্ধারা।

জানা গেছে, সংশোধিত মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্তি অনুযায়ী আমতলী উপজেলায় ১৬৭ জন বীর মুক্তিযোদ্ধার নাম রয়েছে। তারা নিয়মিত সম্মানী ও উৎসব ভাতা পেয়ে আসছেন।

বিজ্ঞাপন

গত ফ্রেব্রুয়ারি মাসে মো. সামসুদ্দিন আহম্মেদ, ডা. আ. মন্নান হাওলাদার, আবুল বাশার সিদ্দিক ও মো. শাহ আলমের সম্মানী ভাতা বন্ধ হয়ে যায়। এরপর গত মার্চ মাসে মো. আনোয়ার হোসেন, মালেক আকন, মো. শাহ আলম ও বুলবুল নাহারের সম্মানী ভাতা বন্ধ করে দেয় মন্ত্রণালয়। বর্তমানে ১৯ জন মুক্তিয়োদ্ধার সম্মানী ও উৎসব ভাতা বন্ধ করে দিয়েছে মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়। এতে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারগুলোর ঈদ আনন্দ অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে।

এদিকে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ঈদ উৎসব ও সম্মানী ভাতা পেতে আমতলী উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ কে এম আব্দুল্লাহ বিন রশিদ তালিকা করে মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়ে পত্র পাঠিয়েছেন।

বীর মুক্তিযোদ্ধা ডা. আ. মন্নান হাওলাদার ও আবুল বাশার সিদ্দিক বলেন, ১৯ জন মুক্তিযোদ্ধা ঈদুল ফিতরের সম্মানী ও উৎসব ভাতা আসেনি। এতে আমাদের ঈদ আনন্দ অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে।

মুক্তিযোদ্ধা মৃত. আনোয়ার তালুকদারের মেয়ে বুলবুল নাহার বলেন, গত মার্চ মাসে আমার বাবার সম্মানী ভাতা বন্ধ হয়ে গেছে। কেন বন্ধ হয়েছে তা আমার জানা নেই।

সোনালী ব্যাংক লিমিটেড আমতলী শাখার ব্যবস্থাপক মো. কাওসার মোল্লা বলেন, তালিকা অনুসারে ভাতা দেওয়া হয়েছে। তবে ১৯ জন মুক্তিযোদ্ধার উৎসব ভাতা এখনো আসেনি।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ কে এম আব্দুল্লাহ বিন রশিদ মুঠোফোনে বলেন, ১৯ জন মুক্তিযোদ্ধার সম্মানী ও উৎসব ভাতা এখনো আসেনি। তাদের তালিকা করে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় পাঠিয়েছি। আশা করি দ্রুত সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।



সাতদিনের সেরা