kalerkantho

বৃহস্পতিবার ।  ১৯ মে ২০২২ । ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৭ শাওয়াল ১৪৪৩  

'দেশে যে এত উন্নয়ন হচ্ছে সেটা বেশি করে প্রচার করতে হবে'

সিলেট অফিস   

২৮ জানুয়ারি, ২০২২ ২০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



'দেশে যে এত উন্নয়ন হচ্ছে সেটা বেশি করে প্রচার করতে হবে'

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, বিএনপি সারা দুনিয়ায় দেশের বিরুদ্ধে নানা অপপ্রচার চালাচ্ছে এবং লবিস্ট নিয়োগ করেছে। দেশের রপ্তানি ও উন্নয়ন যাতে বাধাগ্রস্ত হয় এবং দেশের সুনাম যাতে ক্ষুণ্ন হয় সেজন্য বহির্বিশ্বে কাজ করছে তারা। ’ এ সময় তিনি নির্বাচন কমিশন গঠনের সংলাপে বিএনপি না যাওয়ারও সমালোচনা করেন।

আজ শুক্রবার (২৮ জানুয়ারি) সকাল সাড়ে ১০টায় সিলেট সার্কিট হাউসে সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় সময় তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী হাছান মাহমুদ এসব কথা বলেন।

বিজ্ঞাপন

সভায় উপস্থিত ছিলেন সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শফিকুর রহমান চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দিন খান, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন আহমদ, সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন প্রমুখ।

সভায় হাছান মাহমুদ বলেন, বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর নিজে সাইন করে চিঠি লিখেছেন যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন আইনপ্রণেতার কাছে এবং বিভিন্ন ডিপার্টমেন্টে চিঠি লিখেছেন বাংলাদেশকে সাহায্য না দেওয়ার জন্য, সাহায্য দেওয়াটা পুনর্মূল্যায়ন করার জন্য। ’

একটি দলের মহাসচিব কীভাবে দেশকে সাহায্য না দেওয়ার জন্য বা সাহায্য দেওয়ার ক্ষেত্রে পুনর্মূল্যায়ন করার জন্য চিঠি লিখতে পারেন এমন প্রশ্ন রেখে তিনি বলেন, ‘তারা আবার দেশ পরিচালনার স্বপ্ন দেখেন। তাঁরা আসলে দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রকারী। তাঁরা দেশ বিরোধী। ’

নির্বাচন কমিশন গঠনে আইন করা প্রসঙ্গে মন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেন, ‘মহামান্য রাষ্ট্রপতি নির্বাচন কমিশন গঠন করার জন্য সংলাপের আয়োজন করেছেন। সেই সংলাপে অনেক রাজনৈতিক দল গেছে। বিএনপি যায়নি। কারণ, বিএনপিকে ‘না’ রোগে পেয়ে বসেছে। সবকিছুতেই না করে। বিএনপি ‘না’ রোগে আক্রান্ত। ’

তিনি আরো বলেন, ‘সংলাপে বেশিরভাগ রাজনৈতিক দল বলেছে, নির্বাচন কমিশন গঠন করার জন্য একটা আইন করা হোক। বিএনপির নেতারাও বিভিন্ন সভা-সমিতিতে এ আইন করার দাবি জানিয়েছেন। যেই আইন করার উদ্যোগ নেওয়া হলো, তখন তারা আবার উল্টো সুরে কথা বলা শুরু করল। ’ 

দলের তরুণ নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘শেখ হাসিনার সাফল্যের ভাগিদার দেশের জনগণ। কিন্তু এই সাফল্য তরুণ নেতাকর্মীদের ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণে মাঝে মাঝে ম্লান হয়ে যায়। ’

এ সময় তিনি তরুণ নেতাকর্মীদেরকে ক্ষমতায় থাকাকালীন আরো বিনয়ী হওয়ার পরামর্শ দেন। ’ সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসকুকে তুলে ধরতে নেতাকর্মীদের পরামর্শ দিয়ে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘দেশে যে এত উন্নয়ন হচ্ছে সেটি বেশি বেশি করে প্রচার করতে হবে। শুধু সেলফি তুলে ফেসবুকে দিলে হবে না। দেশের সাড়ে ৮ কোটি মানুষ এখন ফেসবুক ব্যবহার করে। গাড়িতে, বাসে, ট্রেনে এমনকি বাথরুমে বসেও ফেসবুক দেখে। সুতরাং আমাদের এই মাধ্যমটাকে কাজে লাগাতে হবে। দেশবিরোধী বা সরকার বিরোধীপক্ষ ফেসবুকে অপপ্রচার চালালে আমাদের উচিত সেগুলোকে মিথ্যা হিসেবে সবার সামনে তুলে ধরা।



সাতদিনের সেরা