kalerkantho

মঙ্গলবার ।  ১৭ মে ২০২২ । ৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৫ শাওয়াল ১৪৪৩  

'এ মৌসুমে এত শীত আগে পড়েনি'

দিনাজপুর প্রতিনিধি   

২৮ জানুয়ারি, ২০২২ ১৭:১৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



'এ মৌসুমে এত শীত আগে পড়েনি'

চলতি শীত মৌসুমে দিনাজপুর জেলায় আজ শুক্রবার তাপমাত্রা সবচেয়ে কম। এটি আজ দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা না হলেও এর আগে দিনাজপুর জেলায় এই মৌসুমে এত শীত পড়েনি। আজ দিনাজপুরে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৮ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

একদিনের ব্যবধানে তাপমাত্রা কমেছে ২ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

বিজ্ঞাপন

একই সঙ্গে বেড়েছে বাতাসের আর্দ্রতা ও গতিবেগ। ফলে বেশ শীত অনুভূত হচ্ছে। আবহাওয়া অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা জানান, দেশের বিভিন্ন স্থানে মৃদু ও মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ হচ্ছে। এই শৈত্যপ্রবাহ কদিন স্থায়ী হতে পারে।

দিনাজপুর আঞ্চলিক আবহাওয়া পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার (২৮ জানুয়ারি, ২০২২) দিনাজপুরে সকাল ৬টায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ৮.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা সকাল ৯টায় কমে দাঁড়ায় ৮ দশমিক ৩ ডিগ্রিতে। বাতাসের আর্দ্রতা ৯৩ শতাংশ এবং বাতাসের গতিবেগ ঘণ্টায় ছিল ৪-৫ কিলোমিটার। তবে বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে এটি উত্তর বা উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে ঘণ্টায় ১০-১৫ কিলোমিটার গতিতে ধাবিত হতে পারে।

এর আগে বৃহস্পতিবার দিনাজপুরে সকাল ৬টায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১১ দশমিক শূন্য ডিগ্রি সেলসিয়াস। বাতাসের আর্দ্রতা ছিল ৮২ শতাংশ এবং বাতাসের গতিবেগ ঘণ্টায় ছিল ৩-৪ কিলোমিটার।

আবহাওয়া দপ্তরের কর্মকর্তা তোফাজ্জল হোসেন বলেন, রংপুর ও রাজশাহী বিভাগসহ দেশের আরো বেশ কিছু স্থানের ওপর দিয়ে একটি মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। শৈত্যপ্রবাহটি অব্যাহত থাকতে পারে। কমে যেতে পারে তাপমাত্রা। তিনি বলেন, হিমেল বাতাসের প্রভাব ও বাতাসের গতিবেগের কারণে বেশি শীত অনুভূত হচ্ছে। আর এই বাতাসের কারণে কুয়াশা নেই।

তবে শৈত্যপ্রবাহ থাকলেও দিনাজপুরবাসী সকালে সূর্যের দেখা পেয়েছে। তবে তাতে তেমন তাপ নেই। রয়েছে হিমেল বাতাসের প্রভাব। আর এসব মিলে সাধারণ মানুষকে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

মুন্সিপাড়া খালপাড়া এলাকার আজাহার রেজা বলেন, রাত থেকে প্রচণ্ড শীত আর ঠাণ্ডা বাতাস। গায়ে কাঁটা দিচ্ছে। এবার শীতে আজকের মতো ঠাণ্ডা কোনোদিন লাগেনি। মিন্ত্রিপাড়া মহল্লার আমিনুল ইসলাম নামে এক কৃষক বলেন, 'শীতের কারণে জমি-বাড়িতে কাজ করতে পারছি না। হিমেল হাওয়া হাত-পা নড়াচড়া করা দায়। '



সাতদিনের সেরা