kalerkantho

সোমবার ।  ২৩ মে ২০২২ । ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ২১ শাওয়াল ১৪৪৩  

কালিয়াকৈরে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী

র‌্যাবকে প্রশ্নবিদ্ধ করা ঠিক হয়নি

কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি   

২৩ জানুয়ারি, ২০২২ ১৯:৪৬ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



র‌্যাবকে প্রশ্নবিদ্ধ করা ঠিক হয়নি

শান্তি মিশনে র‌্যাবকে নিষিদ্ধ করার চিঠির বিষয়ে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেন, 'যারা চিঠি দিয়েছেন এটা তাদের ব্যাপার। তবে ১২টি সংস্থা মিলে বাংলাদেশের এই বিশাল বাহিনীকে প্রশ্নবিদ্ধ করা ঠিক হয়নি। কারণ একটা বাহিনীর সফলতা ও ব্যর্থতা থাকে। অসত্য চিঠি দিয়েছেন, তা বাংলাদেশের জন্য কাম্য নয়।

বিজ্ঞাপন

'

মন্ত্রী রবিবার বিকেলে কালিয়াকৈরে বঙ্গবন্ধু হাইটেক সিটিতে মুজিববর্ষ উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটি কর্তৃক প্রকাশিত বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্ম স্মারকগ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন এবং মুজিববর্ষ সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরি-উক্ত কথাগুলো বলেন।

মন্ত্রী আরো বলেন, 'বঙ্গবন্ধু পৃথিবীর মধ্যে অন্যতম শ্রেষ্ঠ শাসক ছিলেন। রাষ্ট্র পরিচালনায় রাষ্ট্রনায়ক ছিলেন সেটাও কম আলোচনা হয়। তবে তাঁর রাজনৈতিক আলোচনা বেশি হয়, তিনি সাহসী ছিলেন, ত্যাগী ছিলেন। তিনি সাড়ে তিন বছরে এই যুদ্ধবিধস্ত দেশ কিভাবে পরিচালনা করতে হবে তা মহাপরিকল্পনা করে শাসন করেছিলেন। যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশে কিছুই ছিল না, তিনি কিভাবে প্রশাসন গড়ে তুলেছিলেন, কিভাবে শিক্ষানীতি শিল্পনীতি, স্বাস্থ্যনীতি সব কিছু ঠিক করে রাষ্ট্র পরিচালনা করেছিলেন। বঙ্গবন্ধুর কর্মময় প্রশাসনিক কর্ম, রাষ্ট্র পরিচালনার কর্ম, সেটা জাতির সামনে তুলে ধরা হচ্ছে না। আমরা বঙ্গবন্ধুকে ভালোবাসি, শুধু মুখে মুখে বললে হবে না। তাঁর প্রতি আমরা শ্রদ্ধাশীল, মুখে বললে হবে না। কাজের মাধ্যমে সেগুলো প্রমাণ করতে হবে। বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে ধারণ করতে চবে। তাঁর চিন্তাধারা, তিনি কী চেয়েছিলেন। তাঁর যে চিন্তাধারা, তাঁর যে দর্শণ, আমরা সেদিন স্লোগান দিয়েছিলাম, বঙ্গবন্ধুর যে অর্থনৈতিক কর্মসূচি দ্বিতীয় শিল্প বিপ্লবের, সেদিন আমরা বলেছিলাম, বিশ্বওয়ালার নতুনবাদ, মুজিববাদ। এই বঙ্গবন্ধুর দর্শন এটা এখন কমই আলোচিত হয়। পাকিস্তানে ইংরেজ শাসক-শোষকের পরিবর্তে আমরা পাঞ্জাবি শাসক-শোষক পেয়েছি। এতে বাঙালির মুক্তি আসবে না। তাই বাঙালির মুক্তির জন্য ৪৮ সালে ৪ জানুয়ারি ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে মুক্তির সংগ্রাম শুরু করেন। বঙ্গবন্ধুর শতবার্ষিকী চলছে। একই সাথে স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি চলছে। '

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল বিশ্ববিদ্যালয় বিকাশে সকল প্রকার সহযোগিতা করা হবে। নিজস্ব ভবনসহ অবকাঠামো করা হবে।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটির উপাচার্য অধ্যাপক ড. মুনাজ আহমেদ নূর। এ সময় বক্তব্য রাখেন গাজীপুর জেলা প্রশাসক আনিসুর রহমান, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটির রেজিস্ট্রার (অতিরিক্ত দায়িত্ব) মো. আশরাফ উদ্দিন, ইউনিভার্সিটির আইটি শিক্ষার্থী অনিমা জামান প্রমা প্রমুখ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ উনমুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের উপচার্য অধ্যাপক সৈয়দ হুমায়ন আখতার, কালিয়াকৈর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামাল উদ্দিন সিকদার, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাজওয়ার আকরাম সাকাপি ইবনে সাজ্জাদ প্রমুখ।



সাতদিনের সেরা