kalerkantho

শনিবার ।  ২১ মে ২০২২ । ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৯ শাওয়াল ১৪৪৩  

আলমডাঙ্গার অধিকাংশ ইটভাটায় পুড়ছে কাঠ-খড়ি

আলমডাঙ্গা (চুয়াডাঙ্গা) প্রতিনিধি   

২০ জানুয়ারি, ২০২২ ১৭:১৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আলমডাঙ্গার অধিকাংশ ইটভাটায় পুড়ছে কাঠ-খড়ি

আলমডাঙ্গার অধিকাংশ ইটভাটার নেই লাইসেন্সসহ বৈধ কাগজপত্র। এ সকল ইটভাটায় কয়লার পরিবর্তে পোড়ানো হচ্ছে কাঠ-খড়ি। ভাটা মালিকরা নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে প্রতিনিয়ত দূষিত করছে পরিবেশ। ক্ষতি করছে কৃষি জমির।

বিজ্ঞাপন

এসব অবৈধ ইটভাটা বন্ধে সংশ্লিষ্ট  প্রশাসনেরও নেই কোনো কার্যকর পদক্ষেপ। গত ১৭ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত উপজেলা আইন শৃঙ্খলা মিটিংয়ে ভাটামালিকদের এসব অবৈধ কর্মকাণ্ডের বিষয়ে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার জানিয়েছেন।

জানা যায়, আলমডাঙ্গা উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় গড়ে উঠেছে ২০টি ইটভাটা। এসব ইটভাটার মধ্যে দু-একটি বাদে কোনো ইটভাটার নেই বৈধ কাগজপত্র। প্রায় সবগুলি ইটভাটা এলজিইডির সড়কের পাশে অবৈধভাবে গড়ে উঠেছে। ফসলি জমির মধ্যে অনুমোদনহীন এসব ভাটা গড়ে তুলে  ক্ষতি করছে ফসলি জমির। এসকল ভাটায় ফসলি জমির মাটি কেটে স্তুপ করে রাখা হচ্ছে। একটি চক্র নদী,খাল থেকে মাটি কেটে বিক্রি করছে ভাটা মালিকদের কাছে। এরা টলি ভরে আনার সময় রাস্তায় মাটি ফেলে রেখে সড়কে স্বাভাবিক চলাচল ব্যাহত করছে। ফলে বৃষ্টি হলেই ভাটা সংলগ্ন রাস্তায় চলাচলে চরম ভোগান্তির সৃষ্টি হচ্ছে।

গত ১৭ জানুয়ারি উপজেলা আইন শৃঙ্খলা কমিটির সভায় বেশ কয়েকজন বক্তা ইটভাটায় কয়লার পরিবর্তে কাঠ-খড়ি পোড়ানোসহ অবৈধভাটা বন্ধের বিষয়টি উত্থাপন করেন। সে সময় উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবিষয়ে তদন্ত টিম গঠন করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ইটভাটা সমিতি উৎকোচ দিয়ে প্রশাসনের নিকট থেকে চলতি মাসের ১৫ জানুয়ারি পর্যন্ত কাঠ পোড়ানোর অনুমতি লাভ করে। ১৫ জানুয়ারি অতিক্রান্ত হলেও বেশ কয়েকটি ইটভাটায় এখনও কাঠ-খড়ি পোড়ানো হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

অভিযোগের ভিত্তিতে সরেজমিন বন্ডবিল গ্রামে মতিয়ার রহমান বাবু ও ফরিদপুর রাস্তার পাশে সেলিম (জাবর) দুটি ইটভাটায় গিয়ে দেখা গেছে, ভাটার মূল চুল্লির পাশেই পোড়ানোর উপযোগী করে কাঠ খড়ি জড়ো করে রাখা হয়েছে। কয়লার পরিবর্তে এই দুটি ভাটায় দেদারছে পোড়ানো হচ্ছে কাঠের খড়ি। একই চিত্র দেখা গেছে জামজামি ও ঘোষবিলা এলাকার কয়েকটি ইটভাটায়। ফলে নষ্ট হচ্ছে পরিবেশের ভারসাম্য।



সাতদিনের সেরা