kalerkantho

মঙ্গলবার ।  ১৭ মে ২০২২ । ৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৫ শাওয়াল ১৪৪৩  

ত্রাণের চাল আত্মসাৎ: দায় থেকে অব্যাহতি পেলেন ইউপি চেয়ারম্যান

চকরিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি    

১৯ জানুয়ারি, ২০২২ ১৩:২৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ত্রাণের চাল আত্মসাৎ: দায় থেকে অব্যাহতি পেলেন ইউপি চেয়ারম্যান

ত্রাণের ১৫ টন জিআর চাল আত্মসাতের মামলার দায় থেকে অব্যাহতি পেয়েছেন কক্সবাজারের পেকুয়ার টৈটং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহেদুল ইসলাম চৌধুরী। গতকাল মঙ্গলবার দীর্ঘ শুনানি শেষে তাকে অব্যাহতি দেন বিজ্ঞ কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ এবং জ্যেষ্ঠ স্পেশাল জজ মোহাম্মদ ইসমাইল। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন জাহেদুল ইসলামের কৌসুলি জ্যেষ্ঠ আইনজীবী মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ত্রাণের চাল আত্মসাতের দায় থেকে অব্যাহতি পাওয়ার পর প্রতিক্রিয়ায় টৈটং ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান এবং টৈটং ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহেদুল ইসলাম চৌধুরী কালের কণ্ঠকে বলেন, আমি ব্যক্তিগতভাবে ত্রাণের একমুঠো চালও আত্মসাৎ করিনি।

বিজ্ঞাপন

মূলত নিজ দলের জেলা এবং উপজেলা পর্যায়ের একটি শক্তিশালী কুচক্রিমহলের এবং প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের প্রতিহিংসার শিকার হয়েছিলাম। এমনকি মিথ্যা একটি ঘটনাকে মুহূর্তের মধ্যে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল করার পর প্রশাসন আমার বিরুদ্ধে মামলাও রুজু করে। কোনো ধরনের তদন্ত না করেই আমাকে চেয়ারম্যানের পদ থেকেও অব্যাহতি দেওয়া হয়েছিল খুব তড়িঘড়ি করে। অবশেষে দীর্ঘ তদন্ত শেষে বাংলাদেশ পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) মামলার তদন্ত প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করলে গতকাল মঙ্গলবার আমাকে অভিযোগের দায় থেকে চুড়ান্তভাবে অব্যাহতি প্রদান করেন। এজন্য আমি আদালতের বিজ্ঞ বিচারকসহ সংশ্লিষ্ট সব পক্ষকে কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।

অব্যাহতি পাওয়া চেয়ারম্যান জাহেদুল ইসলাম চৌধুরী ২০২১ সালের ২০ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হিসেবে নৌকা প্রতীক নিয়ে বিপুল ভোটে পুনরায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।
 
উল্লেখ্য, বহুল আলোচিত ত্রাণের ১৫ টন চাল আত্মসাতের এই ঘটনার বিশদ তদন্তে স্থানীয় সরকার বিভাগ, চট্টগ্রামের তৎকালীন পরিচালক দীপক চক্রবর্তীর নেতৃত্বে গঠিত তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি চেয়ারম্যান জাহেদকে দোষি সাব্যস্ত করে তাকে চেয়ারম্যানের পদ থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করার সুপারিশও করেন। তদন্ত কমিটির অন্য দুই সদস্য ছিলেন কক্সবাজার স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক (উপসচিব) শ্রাবস্তী রায় ও কক্সবাজারের তৎকালীন জেলা ত্রাণ ও পূনর্বাসন কর্মকর্তা মো. মাহবুবুল আলম। এই ঘটনায় পেকুয়ার তৎকালীন ইউএনও সাঈকা শাহাদাতকে অন্যত্র বদলিও করা হয়।



সাতদিনের সেরা