kalerkantho

বুধবার ।  ১৮ মে ২০২২ । ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৬ শাওয়াল ১৪৪৩  

তুফান মুক্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক, বগুড়া   

১৬ জানুয়ারি, ২০২২ ১৮:৪৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



তুফান মুক্ত

সাক্ষীর কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে মা-মেয়ে দুজনই বলে, ঘটনার স্থান, কাল, কিছুই তারা জানে না। তুফান সরকারের বিরুদ্ধে তাদের কোনো অভিযোগও নেই। কোনো ধর্ষণের ঘটনাও ঘটেনি। তুফানের সাথে তাদের ভুল-বোঝাবুঝি হয়েছে মাত্র।

বিজ্ঞাপন

মামলার এজাহারে বর্ণিত অভিযোগ সত্য নয়। জোরজবরদস্তি করে মামলার এজাহারে তার স্বাক্ষর নেওয়া হয়েছে। এজাহারে কী লেখা আছে, সেটাও পড়ে দেখেনি।

বগুড়ায় তিন বছর আগে ছাত্রী ধর্ষণ এবং ওই মেয়ে ও তার মায়ের মাথা ন্যাড়া করে দেওয়ার মামলার প্রধান আসামি তুফান সরকার জামিনে মুক্ত হয়ে কারাগার থেকে বের হয়েছেন। গত ১০ জানুয়ারি বিকেল সাড়ে ৫টায় বগুড়া কারাগার থেকে বের হন তুফান। এর আগে একাধিক মামলায় জামিন হলেও ভিন্ন মামলায় শ্যোন অ্যারেস্ট থাকার কারণে তাঁর মুক্তির পথ রুদ্ধ হয়ে ছিল।

বগুড়া কারাগারের জেলার মহিউদ্দিন হায়দার রবিবার দুপুরে বলেন, গত ১০ জানুয়ারি তুফান সরকারের জামিনের কাগজপত্র বগুড়া কারাগারে এসে পৌঁছয়। এরপর সমস্ত আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করার পর বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে কারাগার থেকে তিনি মুক্তি পান।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, তুফান সরকারের বিরুদ্ধে মোট ৮টি মামলা চলমান ছিল। এর মধ্যে আলোচিত ছাত্রী ধর্ষণ এবং ওই মেয়ে ও তার মায়ের মাথা ন্যাড়া করে দেওয়ার মামলাটি বাদীপক্ষ আদালতে পুলিশের বিরুদ্ধে জোরপূর্বক ধর্ষণ মামলা দায়ের করার অভিযোগ এনে এফিডেভিট করে। এর কারণে অনেক আগেই আলোচিত এই মামলাটিতে তুফান সরকারের জামিন হয়ে যায়। এর পরও ভিন্ন মামলা থাকার কারণে তিনি দীর্ঘ সাড়ে তিন বছর ধরে কারাগার থেকে বের হতে পারেননি। সর্বশেষ মানি লন্ডারিং আইনে দায়ের করা একটি মামলায় শুনানি শেষে হাইকোর্ট থেকে গত ৫ জানুয়ারি তুফান সরকারের জামিন হয়। এরপর চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের মাধ্যমে এসংক্রান্ত নথিপত্র গত ১০ জানুয়ারি বগুড়া কারাগারে এসে পৌঁছয়। ওই দিনই মুক্তি পেয়ে কারাগার থেকে বের হন তুফান সরকার। এর আগে ২০১৭ সালের ২৯ জুলাই সদর থানার দায়ের করা মামলার আসামি হিসেবে কারাগারে প্রবেশ করেছিলেন তিনি।



সাতদিনের সেরা