kalerkantho

মঙ্গলবার । ১১ মাঘ ১৪২৮। ২৫ জানুয়ারি ২০২২। ২১ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

ভোট না দেওয়ায় শপথ গ্রহণের পর দোকান ভাঙলেন নবনির্বাচিত মেম্বার

ধামরাই (ঢাকা) প্রতিনিধি    

২৮ ডিসেম্বর, ২০২১ ১১:৫১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ভোট না দেওয়ায় শপথ গ্রহণের পর দোকান ভাঙলেন নবনির্বাচিত মেম্বার

পাশের দোকানটি অক্ষত রয়েছে

ঢাকার ধামরাইয়ে নবনির্বাচিত এক ইউপি সদস্য শপথ নেওয়ার পরদিন সকালেই ভোট না দেওয়ার অভিযোগে এক ব্যক্তির দোকানঘর ভেঙে দিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এতে ভয়ে দোকানদার পালিয়ে বেড়াচ্ছে বলে জানা গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল সোমবার সকালে চৌহাট ইউনিয়নের দ্বিমুখা বাজারে।   

সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, দ্বিমুখা গ্রামের সাইফুল ইসলাম ওরফে ছয়ফর গত কয়েক বছর ধরে দ্বিমুখা বাজারে কালিমন্দিরের পুকুরের পাড়ে ভাসমান একটি দোকানঘর নির্মাণ করে ফার্নিচারের ব্যবসা করে আসছিলেন।

বিজ্ঞাপন

কাঠ মিস্ত্রির কাজ করেই তার স্ত্রী, দুই মেয়ে ও দুই ছেলেসহ পরিবারের ছয় সদস্যের ভরণপোষণ করেন তিনি। এর মধ্যে ইব্রাহিম নামে দশ বছরের এক প্রতিবন্ধী ছেলেও রয়েছে তার। বড় মেয়ে সিমু আক্তার এবার এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছে, আরেক মেয়ে লাবনী আক্তার সপ্তম শ্রেণিতে লেখাপড়া করে। তাদের লেখাপড়ার খরচও জোগাড় করতে হয়েছে এ দোকান থেকেই। ওই দোকান ঘরটি সোমবার সকালে ভেঙে দিয়েছেন চৌহাট ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের নবনির্বাচিত ইউপি সদস্য নাজমুল হাসান সঞ্চয়ের নেতৃত্বে কামাল, জুয়েল, জাহিদুল।

ভুক্তভোগী সাইফুল ইসলাম বলেন, নির্বাচনে তাকে ভোট না দেওয়ার অভিযোগে আমার দোকান ঘরটি ভাইঙ্গা দিছে নতুন মেম্বার (সদস্য) নাজমুল হাসান সঞ্চয়, কামাল, জুয়েল ও জাহিদুল। ভয়ে আমি বাড়ি থাইক্যা পলিয়ে আইছি। অহন মামলা করতেও সাহস পাই না।  

এ বিষয়ে ইউপি সদস্য নাজমুল হাসান সঞ্চয় বলেন, ভোট না দেওয়ার কারণে নয়, মূলত সরকারি খাসজমিতে রাস্তার পাশে দোকান ঘরটি থাকলে খারাপ দেখা যায়। তাই অনেকের অনুরোধে ঘরটি ভেঙে দিয়েছি।

তবে সরেজমিনে দেখা যায়, ছয়ফরের দোকানঘর সংলগ্ন আরেকটি দোকান রয়েছে অক্ষত অবস্থায়।  
স্থানীয়রা জানান, মূলত নির্বাচনকে কেন্দ্র করেই ছয়ফরের ওপর জুলুম করা হয়েছে।  

এদিকে, কালিমন্দির কমিটির সভাপতি মঞ্জু রানী সাহা বলেন, ছয়ফর খাস জমিতে দোকানঘর করেনি। সেটা মূলত কালিমন্দিরের একটি পুকুরপাড়ে দোকানঘরটি ছিল।  

স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পারভীন হাসান প্রীতি বলেন, শুনেছি ছয়ফরের দোকানঘরটি ভেঙে দিয়েছে। এটা মোটেও ঠিক করেনি।

কাওয়ালীপাড়া বাজার পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ পরিদর্শক রাসেল মোল্লা বলেন, শুনেছি একটি দোকানঘর ভেঙে দিয়েছে। তবে অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।   



সাতদিনের সেরা