kalerkantho

বুধবার । ১২ মাঘ ১৪২৮। ২৬ জানুয়ারি ২০২২। ২২ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

আবরার হত্যায় জড়িত মুন্নার পরিবার বিএনপির রাজনীতিতে জড়িত!

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি   

৮ ডিসেম্বর, ২০২১ ২০:১২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আবরার হত্যায় জড়িত মুন্নার পরিবার বিএনপির রাজনীতিতে জড়িত!

নিহত আবরার ফাহাদ।

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত ছাত্রলীগ নেতা ইশতিয়াক আহমেদ মুন্নার পরিবার বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। বিএনপি ঘরানার ছেলে ছাত্রলীগের পদ লাভ ও হত্যায় জড়িত থাকার ঘটনায় মুন্নার এলাকা হবিগঞ্জের চুনারুঘাটে বেশ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। অপরদিকে তার পরিবারের দাবি, হত্যাকাণ্ডের সময় মুন্না বাড়িতে ছিল।

চুনারুঘাট উপজেলার ঘরগাঁও গ্রামের প্রয়াত আহাদ আলী মেম্বারের মেজ ছেলে মুন্না।

বিজ্ঞাপন

বুয়েটে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে পড়া মুন্না ছাত্রলীগ বুয়েট শাখার গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক ছিলেন। তার বড় ভাই ক্যাপ্টেন আশরাফ আহমেদ মনির সিলেট ক্যান্টনমেন্টে কর্মরত, ছোট ভাই ইফতেখার আহমেদ সিলেট শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র। তাদের বাবা আহাদ আলী চুনারুঘাট ইউনিয়ন বিএনপির ৫নং ওয়ার্ডের সভাপতি ছিলেন। তার চাচা ওয়াহেদ আলী মেম্বার বর্তমানে ৫নং ওয়ার্ড বিএনপির সহ-সভাপতি।

বিএনপি ঘরানার পরিবারের সন্তান হয়ে মুন্না বুয়েটে গিয়ে কিভাবে ছাত্রলীগ নেতা হন এ নিয়ে অনলাইন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নানা বিশ্লেষণ চলছে। স্থানীয় অনেকেই এতে ক্ষোভ প্রকাশ করছেন। আবার অনেকে বলছেন, বাবা বিএনপি করলে ছেলে ছাত্রলীগ করতে পারবে না এমন কোনো নিয়ম আছে কিনা?

এ বিষয়ে চুনারুঘাট সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শাহ ফারুক আহমেদ বলেন, প্রয়াত আহাদ আলী বিএনপি করতেন। তার পরিবারও বিএনপি সমর্থক। কিন্তু মুন্না কীভাবে ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত হল তা আমরা জানি না।

এদিকে মুন্নার পরিবারের সদস্যদের দাবি, হত্যার ঘটনার সময় সে বাড়িতে ছিল। এ ব্যাপারে তারা আপিল করবেন।



সাতদিনের সেরা